kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সরকারি বিএম কলেজ

৩০ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য একটি বাস!

আজিম হোসেন, বরিশাল   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বরিশাল সরকারি বিএম কলেজে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর মিলিয়ে ৩৭টি বিভাগে শিক্ষার্থী রয়েছে প্রায় ৩০ হাজার। এর মধ্যে অর্ধেকই আসে আশপাশের জেলা ও উপজেলা থেকে।

এসব শিক্ষার্থীর যাতায়াতের জন্য কলেজের তিনটি বাসের মধ্যে দুটিই বিকল হয়ে পড়ে আছে। সচল বাসটিও যান্ত্রিক সমস্যার কারণে প্রায়ই রাস্তায় বিকল হয়ে যায়।

কলেজের নিজস্ব পরিবহনব্যবস্থার এমন বেহালের কারণে নগরীর বাইরের শিক্ষার্থীদের গণপরিবহনের ওপর নির্ভর করতে হয়। অনেক সময় আসতে দেরি হওয়ার কারণে ক্লাস করতে পারে না অনেক ছাত্রছাত্রী।

কলেজ প্রশাসনের দেওয়া তথ্য মতে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ১৯৯৩ সালে একটি বাস দেন তখনকার রাষ্ট্রপতি আব্দুর রহমান বিশ্বাস। ১৯৯৬ সালে আরো দুটি বাস কেনা হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও কলেজ প্রশাসনের অর্থায়নে। এ তিনটি বাসের মধ্যে একটি অচল হয়ে যায় ২০১০ সালে। দুই বছর পর আরেকটি বাস অকেজো হয়ে যায়। কিছুদিন জোড়াতালি দিয়ে চালানো হলেও বাসটি ২০১৩ সালে একবারেই অচল হয়ে যায়। গত বছর শিক্ষার্থীদের দেওয়া টাকায় নতুন একটি বাস কেনা হয়। কিন্তু এর মধ্যে পুরনো যে বাসটি চলচিল সেটিও অচল হয়ে যায়। এখন ভরসা একটি মাত্র বাস।

কলেজ সূত্র জানায়, ৩০ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে কলেজের চারপাশে অবস্থিত শতাধিক মেসে প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী থাকে। এ ছাড়া কলেজের চার ছাত্রাবাসে প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থী থাকে। নগরের বিভিন্ন স্থান থেকে ১০ হাজার শিক্ষার্থী নিয়মিত কলেজে যাওয়া-আসা করে।

অর্থনীতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ঝালকাঠির বাসিন্দা পলাশ খান বলেন, বাসসহ অন্য গণপরিবহনে অনেক টাকা লাগে। আবার সব সময় বাস পাওয়াও যায় না। তাই কলেজের বাসে চড়তে হয়। কিন্তু এই বাস প্রায়ই রাস্তায় বিকল হয়ে যায়।

সমাজকল্যাণ বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থী চাঁদ সুলতানার বাড়ি গৌরনদী উপজেলায়। কলেজের বাসে উঠতে না পারলে তাঁকে লেগুনায় করে যাতায়াত করতে হয়। তিনি বলেন, ‘কলেজের বাসে গেলে খরচ নেই বললেই চলে। আর বাস না পেলে খরচ হয় ১০০ টাকা। তাই বাধ্য হয়ে কলেজ বাসে চড়ি। কিন্তু তা মাঝপথে বিকল হয়ে যাওয়ায় সুবিধার চেয়ে অসুবিধায় পরতে হয় অনেক বেশি। ’

এ বিষয়ে কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক স ম ইমানুল হাকিম বলেন, নতুন একটি বাস কেনা হয়েছে। কলেজ প্রশাসন আরেকটি বাস কেনার পরিকল্পনা নিয়েছে।

অধ্যক্ষ বলেন, ‘নতুন বাস বরাদ্দের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বহুবার আবেদন করা হয়েছে, কিন্তু কোনো ফল নেই। ’


মন্তব্য