kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নতুন উদ্যোগ

মনের জাদুকর ‘৭৮৯৯’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ঢাকার একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক তিনি। এক সন্তানের মা।

দাম্পত্য ও পারিবারিক জটিলতায় অস্থির ছিল তাঁর দিন-রাত। স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি, সন্তান নিয়ে টানাহেঁচড়া। বাবা কিংবা বড় বোনের বাড়িতে থাকা-না থাকা নিয়েও ঝামেলার অন্ত নেই। একপর্যায়ে সিদ্ধান্ত নেন—এই পৃথিবীতে আর নয়।

এমনই অবস্থায় একদিন ইন্টারনেট ঘাঁটতে গিয়ে চোখ আটকে যায় একটি নম্বরের দিকে—‘৭৮৯৯’। এটি মাইন্ড টেল নামের একটি মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী উদ্যোগ। কৌতূহলবশত ফোন করেন ওই নম্বরে। একবার-দুইবার, এক দিন-দুই দিন করে বারবার চলে আলাপচারিতা। দিন পেরিয়ে যায়। ধীরে ধীরে হারিয়ে যায় শারমিনের মনের কালো মেঘ। মনের এক পরম বন্ধু হয়ে ওঠে নম্বরটি। ফিরে পান নতুন জীবন।

শারমিনের মতো খুলনার মহুয়া কিংবা রাজশাহীর আশিক হোসেনরাও বেঁচে গেছেন ‘৭৮৯৯’-এর জাদুর পরশে। এই জাদুকরি নম্বরের উদ্যোক্তাদের খুঁজতে গিয়ে জানা গেল, মোবাইলে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠান সিনেসিস আইটি দেশে প্রথমবারের মতো চালু করেছে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার উদ্যোগ ‘মাইন্ড টেল’। এ সেবার অংশ হিসেবে ২৪ ঘণ্টা দেশের বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সাইকোলজিস্ট ও সাইকিয়াট্রিস্ট পরামর্শ দিয়ে থাকেন। দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে যখন-তখন ফোন করে এই সেবা পাওয়া যায়। আর এ ক্ষেত্রে অবশ্যই তথ্য গোপন থাকে নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনার সুবাদে। যেকোনো মানুষ যেকোনো মানসিক সমস্যা-সংক্রান্ত পরামর্শ নিতে পারেন এই নম্বরে ফোন করে।

সিনেসিস আইটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহরাব আহমেদ চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ায় কেবল বাংলাদেশেই প্রথম চালু হয়েছে এই সেবা। এতে গত দুই মাসে যেভাবে সাড়া পাওয়া যাচ্ছে তা আগে কল্পনাও করতে পারিনি। বিশেষ করে দেশের কত মানুষ যে কত রকম মানসিক সমস্যায় ভুগছেন, কত মানুষ যে তাঁদের সমস্যার কথা বিভিন্ন জড়তার কারণে সরাসরি পরিবার, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারছেন না, তা এখন বুঝতে পারছি আমরা। তা ছাড়া অনেকে এমন কিছু সমস্যার কথা বলেন, যা প্রকাশ করা বাস্তবেই খুব কঠিন। এসব মানুষ সমস্যাগুলো মনের ভেতরে চেপে রাখতে রাখতে ক্রমেই মানসিক রোগীতে পরিণত হন। ’ সোহরাব আহমেদ আরো বলেন, ‘একটা বিষয় আমরা দেখতে পাচ্ছি যে মানুষ পরোক্ষভাবে ফোনে একজন অপরিচিত মানুষের কাছে তাঁর মনের অনেক গোপন কথা অবলীলায় বলে ফেলছেন, পরামর্শ চাচ্ছেন। ’


মন্তব্য