kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এবার শাবিতে ছাত্রীকে মারধর

হামলাকারী ও তার বোনকে পুলিশে সোপর্দ

সিলেট অফিস   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সিলেট এমসি কলেজের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার ঘটনার সপ্তাহ না পেরোতে এবার শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এক ছাত্রীর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলাকারীর নাম কাওছার আহমদ।

সে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র। গতকাল শুক্রবার দুপুরে বোনকে সঙ্গে নিয়ে এই হামলা চালায় কাওছার। পরে শিক্ষকরা ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে হামলাকারী ভাই-বোনকে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

শাবি ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল দুপুরে কাওছার আহমদ তার বোনকে নিয়ে ক্যাম্পাসে আসে। কাওছারের বোন শাবির ছাত্রী। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শিক্ষক কোয়ার্টার ও প্রথম ছাত্রী হলের মধ্যবর্তী গার্ডরুমের সামনে আলাপের একপর্যায়ে কাওছার ওই ছাত্রীকে মারধর শুরু করে। এ সময় শাবি অধ্যাপক সামসুল আলম ও সাজেদুল করিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কাওছারকে থামানোর চেষ্টা করেন। এতে কাওছার ক্ষুব্ধ হয়ে শিক্ষকদের ওপর চড়াও হয়। পরে সাধারণ শিক্ষার্থীরা কাওছারকে মারধর করে। খবর পেয়ে জালালাবাদ থানা পুলিশ ক্যাম্পাসে গিয়ে কাওছার ও তার বোনকে উদ্ধারের চেষ্টা চালায়। এ সময় শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের মুখে পড়ে পুলিশ। পরে শিক্ষার্থীদের শান্ত করে কাওছার আহমদ ও তার বোনকে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

জালালাবাদ থানার ওসি আক্তার হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, কাওছারের সঙ্গে ওই ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। কিন্তু ছেলেটির আচরণগত সমস্যার কারণে ওই ছাত্রী সম্পর্ক ভেঙে দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বোনকে নিয়ে হামলা চালায় ছেলেটি। এ ব্যাপারে নির্যাতনের শিকার ওই ছাত্রী মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এজাহার পাওয়ার পর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক ড. রাশেদ তালুকদার বলেন, ‘আমাদের কাছে ছাত্রীকে মারধরের ভিডিও ফুটেজও আছে। আমরা ছেলে ও তার বোনকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীসহ সবার বাড়ি হবিগঞ্জ জেলায়। বিষয়টি এখন পুলিশ দেখবে। ’


মন্তব্য