kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্বাস্থ্য সহকারী পদে নিয়োগ

সাড়ে ৩ বছরেও ফল প্রকাশ হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সাড়ে ৩ বছরেও ফল প্রকাশ হয়নি

সাড়ে তিন বছর আগে অনুষ্ঠিত হয় নিয়োগ পরীক্ষা। সেই যে শুরু, অপেক্ষার পালা যেন শেষ হতে চায় না।

এখনো ফল জানার অপেক্ষায় আছেন নিয়োগ-প্রত্যাশী পরীক্ষার্থীরা। নানা জটিলতায় দফায় দফায় আটকে যাচ্ছে ফল প্রকাশ। এর ফাঁকে অনেক পরীক্ষার্থীরই চলে যাচ্ছে সরকারি চাকরিতে ঢোকার বয়সসীমা। সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতাধীন স্বাস্থ্য সহকারী পদে নিয়োগ পরীক্ষার ফল প্রকাশ নিয়ে তৈরি হয়েছে এমন পরিস্থিতির।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমি এ দায়িত্বে নতুন। বিষয়টি ভালোভাবে জানতে হবে। কেন এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে সেটা দেখে বিধি অনুসারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিব। ’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ২০১২ সালে স্বাস্থ্য সহকারী পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ সময় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখে আগ্রহীরা আবেদন করেন। এর ভিত্তিতে ২০১৩ সালের ২৬ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয় লিখিত পরীক্ষা। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের নিয়ে একই বছর ১৭ আগস্ট হয় মৌখিক পরীক্ষা। এরপর থেকেই শুরু হয় ফলাফলের জন্য অপেক্ষার পালা। আজ হয়, কাল হয় বলে তা আর হয়নি এখন পর্যন্ত। এর মাঝে ২০১৪ সালের ১৪ মে উচ্চ আদালত ওই মৌখিক পরীক্ষার ফল তিন মাসের জন্য স্থগিত করলেও তিন মাস পর আদালত ফল প্রকাশের আদেশ দেন। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তত্কালীন কর্তৃপক্ষ ওই ফলাফল প্রকাশ না করে বরং ২০১৫ সালে পুনরায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এ অবস্থায় সংক্ষুব্ধরা উচ্চ আদালতে গেলে আদালত আবারও মৌখিক পরীক্ষার ফল দেওয়ার নির্দেশ দেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বিষয়টি পাঠানো হয় অর্থ মন্ত্রণালয়ে। এর পরও সাত-আট মাস চলে গেছে।

ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে তাঁদের ফল প্রকাশ বন্ধ রাখা হয়েছে। এখন পর্যন্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তর ওই মৌখিক পরীক্ষার ফল প্রকাশ করতে কোনো প্রকার উদ্যোগ নিচ্ছে না। অথচ এই ফলাফলের দিকে তাকিয়ে থাকা অনেক প্রার্থীর সার্টিফিকেট বয়স ৩০ পার হয়ে যাচ্ছে। তাঁদের অন্য কোনো সরকারি চাকরিতে নিয়োগের আবেদন করার মতো সুযোগ নষ্ট হচ্ছে।

এদিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দেশের প্রতিটি ওয়ার্ডে একজন করে স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। এর অংশ হিসেবে আরো ২০ হাজার স্বাস্থ্য সহকারীর পদ সৃষ্টির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নোত্তর পর্বেও এমন তথ্য জানান।

ওই তথ্যে মন্ত্রী জানিয়েছেন, নীতিমালা অনুযায়ী প্রতিটি ওয়ার্ডে চার হাজার জনগোষ্ঠীর জন্য একজন করে স্বাস্থ্য সহকারী পদ থাকার কথা। বর্তমানে ৪০ হাজার ৬৮০টি ওয়ার্ডের জন্য ২০ হাজার ৮৭৭ স্বাস্থ্য সহকারী রয়েছেন। তাঁদের ওপর চাপ কমাতে প্রতিটি ওয়ার্ডে একজন করে স্বাস্থ্য সহকারী নিয়োগের জন্য ১৯ হাজার ৮০৩টি পদ সৃষ্টির কাজ চলছে।


মন্তব্য