kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বাঘারপাড়ায় দুই শিশুকে নিপীড়ন

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার দাদপুর গ্রামে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির দুই শিক্ষার্থীর ওপর নিপীড়ন চালিয়েছে মুন্না নামের এক শিক্ষক। নিপীড়নের শিকার ওই দুই শিক্ষার্থী সম্পর্কে চাচাতো বোন।

দুই বোনকে অসুস্থ অবস্থায় গতকাল মঙ্গলবার যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনা জানাজানির পর মুন্নাসহ পরিবারের সবাই গা ঢাকা দিয়েছে।  

নির্যাতনের শিকার একটি মেয়ের বাবা বলেন, তাঁর মেয়ে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। তাঁর ভাইয়ের মেয়ে প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। তারা গ্রামের মুন্নাদের বাড়ি গিয়ে তার কাছে প্রাইভেট পড়ত। কয়েক দিন ধরে তারা আর পড়তে যেতে চায় না। একপর্যায়ে গত সোমবার সন্ধ্যায় মেয়ে দুটি তাদের মা ও চাচির কাছে সব খুলে বলে। এও বলে মুন্না তাদের গলায় ছুরি ধরে নির্যাতন চালিয়েছে।

হাসপাতালে ভর্তির পর হয়রানির শিকার ওই দুই বোনের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ধর্ষণের বিষয়টি স্পষ্ট হবে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. ওহিদুজ্জামান টিটো। এদিকে বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার জন্য সোমবার রাতে গ্রামে সালিস বসে। কিন্তু মুন্নার দাদা গ্রামের প্রভাবশালী ব্যক্তি আবদুল মজিদ সালিস বৈঠকে মুন্নার পক্ষ নিয়ে হম্বিতম্বি করেন।

এ ব্যাপারে বাঘারপাড়া থানার ওসি ছয়রুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমরা এ খবর জানতে পেরে মুন্নাকে ধরার জন্য পুলিশ পাঠিয়েছি। ’


মন্তব্য