kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জাফলংয়ে বেড়াতে এসে ডুবে কিশোরের মৃত্যু

সিলেট অফিস ও জামালপুর প্রতিনিধি   

১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



জাফলংয়ে বেড়াতে এসে ডুবে কিশোরের মৃত্যু

সিলেটের পর্যটনকেন্দ্র জাফলংয়ের পিয়াইন নদে সাঁতার কাটতে গিয়ে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। জামালপুরে ব্রহ্মপুত্র নদে নেমে নিখোঁজ রয়েছে এক স্কুল ছাত্র।

গতকাল শুক্রবার এ দুটি দুর্ঘটনা ঘটেছে।

সিলেটে মারা যাওয়া কিশোর সোহরাব আহমেদ (১৫) ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকার নাছির আহমেদের ছেলে। অন্যদিকে জামালপুরে নিখোঁজ স্কুল ছাত্র কাব্য ভূষণ (১৩) জেলা শহরের বোসপাড়া এলাকার অতুল ভূষণের ছেলে। সে জিলা স্কুলে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে।

সিলেট : জাফলংয়ে মারা যাওয়া সোহরাবের খালাতো ভাই সৈকত আহমেদ জানান, গতকাল সকালে ৫০ জন মিলে ঢাকা থেকে জাফলংয়ে বেড়াতে আসেন তাঁরা। সকাল ১১টার দিকে পাঁচ বন্ধু পিয়াইন নদের খেয়াঘাট এলাকায় গোসল করতে নামেন। এ সময় সাঁতার না জানায় সোহরাব পানিতে তলিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে দুপুর ১২টায় তার মরদেহ উদ্ধার করে।

সোহরাব ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে কমর্রত ছিল বলে তার পরিবার জানিয়েছে।

গোয়াইন ঘাট থানার ওসি মো. দেলওয়ার হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহতের স্বজনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এদিকে জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় কুশিয়ারা নদীতে নৌকাডুবিতে হাসান (২২) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল সকাল ১০টায় দুর্ঘটনার পর হাসান নিখোঁজ ছিলেন। বিকেল ৪টায় তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি গোলাপগঞ্জ উপজেলার পনাইরচক গ্রামের মিছির আলীর ছেলে।

জামালপুর : নিখোঁজ স্কুল ছাত্র কাব্য ভূষণের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শহরের বকুলতলা এলাকার নির্মাণ কোচিং সেন্টারে পরীক্ষা দিতে যায় সে। সেখান থেকে বেরিয়ে সকাল ১১টার দিকে সহপাঠীদের সঙ্গে সে পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদের চরে ফুটবল খেলতে যায়। খেলার সময় বলটি নদে গিয়ে পড়ে। সেটা তুলে আনতে নামে কাব্য ও তার বন্ধু সাজ্জাদ আরেফিন। একপর্যায়ে সাজ্জাদ তীরে উঠে আসে; কিন্তু কাব্য ডুবে যায়।

এ ঘটনার পর পরিবারের সদস্য ও সহপাঠীরা অনেক খুঁজেও কাব্যকে উদ্ধার করতে পারেনি। ময়মনসিংহ ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরিদল এসে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। তবে সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। জামালপুর সদর থানার ওসি নাসিমুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


মন্তব্য