kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


উত্তরা ক্লাবে ইউসিবির পৃষ্ঠপোষকতায় ফ্যামিলি লাউঞ্জ

জয়তী চক্রবর্তীর গানে মুগ্ধ শ্রোতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



জয়তী চক্রবর্তীর গানে মুগ্ধ শ্রোতারা

রাজধানীর উত্তরা ক্লাবে গতকাল ভারতীয় শিল্পী জয়তী চক্রবর্তীর একক সংগীত সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের (ইউসিবি) পৃষ্ঠপোষকতায় রাজধানীর উত্তরার ১ নম্বর সেক্টরে পেশাজীবীদের সংগঠন উত্তরা ক্লাব লিমিটেডে চালু করা হয়েছে ইউসিবি ফ্যামিলি লাউঞ্জ। প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে এই লাউঞ্জ নির্মাণ করা হয়েছে।

এ ছাড়া ক্লাবটিতে ব্যক্তিগত অর্থ থেকে একটি লিফটের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন ইউসিবির চেয়ারম্যান এম এ সবুর। গতকাল সন্ধ্যায় লাউঞ্জটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গান গেয়ে শোনান ভারত থেকে আসা জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী জয়তী চক্রবর্তী। রবীন্দ্রনাথের রক্তকরবী নাটিকায় ব্যবহৃত ‘ওগো দুখ জাগানিয়া তোমায় গান শোনাব’ দিয়ে শুরু করেন শিল্পী।

এরপর একে একে ‘আমার মল্লিকা বনে, যখন প্রথম ধরেছে কলি’, ‘সুখদিন, নিশিদিন পরাধীন হয়ে’, ‘তুমি কোন কাননের ফুল’, ‘মেঘের পরে মেঘ জমেছে’ গানগুলো গেয়ে শোনান মধুর কণ্ঠে। ‘বরিষধরা মাঝে শান্তিরও বারি’ গানটি পরিবেশন করার সময় মুহুর্মুহু করতালিতে মুখরিত হয়ে পড়ে হলরুম। ‘সখি ভাবনা কাহারে বলে, সখি যাতনা কাহারে বলে’ গানটিতে শিল্পীর কণ্ঠে কণ্ঠ মেলান আমন্ত্রিত শ্রোতারাও। অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে এভাবে রবীন্দ্রনাথের প্রেম, পূজা ও প্রকৃতি পর্বের বেশ কয়েকটি গান পরিবেশন করেন জয়তী। করেন বর্ষা, বসন্ত ও শরতের গান। নৈশভোজের পর শুরু হয় আধুনিক গান।

এর আগেও কয়েকবার বাংলাদেশে আসেন জয়তী চক্রবর্তী। বাংলাদেশে আসতে ভালোই লাগে তাঁর। জয়তী বলেন, ‘এই দেশে এলে আমার মনে হয় আমি যেন বাপের বাড়িতে এসেছি। আর বাপের বাড়িতে সব মেয়েই ভালো থাকে, জানেন তো। ’

কলকাতার এই শিল্পীর গান শুনতে গতকাল উত্তরা ক্লাবের আমন্ত্রণে সেখানে গিয়েছিলেন দেশের বরেণ্য শিল্পী, সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিক ও সংস্কৃতিসেবীরা। এঁদের মধ্যে ছিলেন ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, নাট্যকার মামুনুর রশীদ, শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার, চিত্রনায়িকা কবরী সারোয়ার, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক।

ইউসিবির চেয়ারম্যান এম এ সবুর বলেন, ইউসিবি কেবল দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে নয়, শিল্প-সংস্কৃতির বিকাশেও বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখে চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় রবীন্দ্রসংগীতের চর্চাকে উদ্বুদ্ধ করতে আনা হয়েছে প্রথিতযশা শিল্পী জয়তী চক্রবর্তীকে।

উত্তরা ক্লাব লিমিটেডের সভাপতি নাসির ইউ মাহমুদ বলেন, উত্তরা ক্লাবের অগ্রগতিতে ইউসিবির চেয়ারম্যান এম এ সবুর ও নির্বাহী পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত আজীজ রুবেল যথেষ্ট সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। যখনই তাঁদের কাছে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে, তখনই তাঁরা তাঁদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁদের এই অবদানের কথা উত্তরা ক্লাব স্মরণ রাখবে।


মন্তব্য