kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


হান্নান শাহর বাসায় গেলেন খালেদা জিয়া

কাল কাপাসিয়ায় দাফন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহর মরদেহ দেশে আনা হয়েছে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে দেশে মরদেহ পৌঁছার পর নেওয়া হয় মহাখালী ডিওএইচএসের বাসায়।

রাতে সেখানে যান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। হান্নান শাহর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে তিনি কথা বলেন এবং সমবেদনা জানান। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকায় ও কাল গাজীপুরে ছয় দফা জানাজা শেষে হান্নান শাহকে বাবার কবরের পাশেই সমাহিত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

দলীয় সূত্র জানিয়েছে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গতকাল রাত সোয়া ১০টার দিকে হান্নান শাহর মহাখালী নিউ ডিওএইচএসের বাসায় যান। মরদেহের পাশে বেশ কিছু সময় অবস্থান করে বিএনপি চেয়ারপারসন মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। পরে তিনি শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান। দেড় ঘণ্টার মতো অবস্থানের পর গুলশানের বাসার উদ্দেশে রওনা হন খালেদা জিয়া। এ সময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

হান্নান শাহর বড় ছেলে শাহ রেজাউল হান্নান জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় মহাখালী ডিওএইচএস মসজিদে, সকাল সাড়ে ১১টায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় ও জোহরের পর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তাঁর জানাজা হবে। পরে তাঁর মরদেহ আবারও সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে। আগামীকাল শুক্রবার সকালে সড়কপথে গাজীপুরে নিয়ে যাওয়া হবে তাঁর মরদেহ। সকাল ৯টায় জয়দেবপুর রাজবাড়ী মাঠে, সকাল সাড়ে ১০টায় কাপাসিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ও জুমার পর নিজ গ্রাম চালা বাজার উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে বাবার কবরের পাশেই তাঁকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে।

মঙ্গলবার ভোররাতে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান হান্নান শাহ। তাঁর মৃত্যুতে চার দিনের শোক কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি। ঢাকা ও গাজীপুরে দোয়া মাহফিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচি চলছে। বিএনপি কার্যালয়ে দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার পাশাপাশি খোলা হয়েছে শোকবই।

 

বিমানবন্দরে গতকাল মরদেহ গ্রহণের সময় পরিবারের সদস্যদের পাশাপাশি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপির নেতারা উপস্থিত ছিলেন। পরে ডিওএইচএসের বাসায় দলীয় নেতাকর্মী ও স্বজনরা হান্নান শাহর প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এরপর তাঁর মরদেহ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমঘরে নিয়ে রাখা হয়।


মন্তব্য