kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আট হাজার লরিতে জিম্মি দেশের আমদানি-রপ্তানি

আসিফ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



কনটেইনারে পণ্য পরিবহনে নিয়োজিত প্রায় আট হাজার ট্রেইলর ও প্রাইম মুভারের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য। জাহাজ থেকে আমদানি পণ্যভর্তি কনটেইনার দেশের বিভিন্ন স্থানে পরিবহন এবং রপ্তানি পণ্যভর্তি কনটেইনার জেটি পর্যন্ত পৌঁছানোর কাজটি করে থাকে এই গাড়িগুলো।

বছরে ২০ লাখ একক (২০ ফুট দৈর্ঘ্যবিশিষ্ট) কনটেইনার পরিবহন এই গাড়িগুলোর কাছে এককভাবে নির্ভরশীল হয়ে পড়ায় তারা পুরো আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যকে জিম্মি করে দাবি আদায়ের কৌশল নিয়েছে। ‘চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার-ট্রেইলর মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’ নামের নবগঠিত সংগঠনটি পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই গত সোমবার থেকে ধর্মঘট ডাকায় ব্যবসায়ী বিশেষ করে রপ্তানিকারকরা চরম বিপাকে পড়েছে। এর আগে গত মাসেও কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে ধর্মঘট ডেকেছিল তারা।

দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহসভাপতি মাহবুবুল আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমদানি-রপ্তানিকে জিম্মি করে দাবি আদায় কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। ধর্মঘট ডেকে রাতারাতি তো আর বিষয়টির সুরাহা হবে না। ধর্মঘট প্রত্যাহার করেই দাবি নিয়ে আলোচনা করতে হবে। ’ তিনি প্রশ্ন করেন, ‘ধর্মঘটের ফলে আমদানি পণ্যের দাম বাড়বে। রপ্তানি শিল্প বিপর্যয়ের মুখে পড়বে। এর দায় তো তাদেরই নিতে হবে। ’

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, চট্টগ্রাম-ঢাকা ফোর লেইন মহাসড়কে ৩৩ টনের বেশি পণ্য পরিবহন করায় গাড়িগুলোকে জরিমানা করছে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। প্রতি গাড়িতে সর্বোচ্চ ১২ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। আর সেই জরিমানা গাড়ির চালক-মালিকরা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকেই আদায় করে নিচ্ছেন। তাহলে কেন এই ধর্মঘট? নেপথ্যে কোনো কারণ আছে কি না খুঁজে দেখতে হবে। আর ‘চট্টগ্রাম প্রাইম মুভার-ট্রেইলর মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’ নামের যে সংগঠনটির ব্যানারে এই ধর্মঘট ডাকা হয়েছে সেটিও হঠাৎ জেগে ওঠা সংগঠন। ধর্মঘটের জন্যই এটি তাড়াহুড়ো করে গঠিত হয়েছে।

মালিকদের মূল সংগঠন চট্টগ্রাম প্রাইম মুভারস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ কে এম আকতার হোসেন। তিনি চট্টগ্রাম সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও চট্টগ্রাম চেম্বারেরও পরিচালক। বক্তব্য জানতে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তিনি মোবাইল ফোনে সাড়া দেননি।

পরে চট্টগ্রাম ট্রেইলর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির স্বীকার করে বলেন, ‘দাবিদাওয়া আদায়ে মালিক-শ্রমিক দুটি সংগঠনকে এক করে নতুন সংগঠন গঠিত হয়েছে। আমাদের মূল সংগঠনের নিবন্ধন থাকলেও আন্দোলনের জন্য গঠিত সংগঠনের নিবন্ধন নেই। ’ রাতে পণ্য চলাচলের সুবিধা দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন চাপে পড়ে আমরা ছাড় দিয়েছিলাম শুধু এক রাতের জন্য। এখন সেটি আর নেই। এভাবে একটা একটা করে ছাড় দিতে গেলে তো আর আন্দোলন থাকবে না। ’

এদিকে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের অনুরোধে এবং বিভিন্ন ব্যবসায়িক মহলের চাপে পড়ে গত মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত ১৬টি কনটেইনার ডিপো থেকে বন্দর জেটি পর্যন্ত রপ্তানি পণ্যবাহী ট্রেইলর ও প্রাইম মুভার চলাচলের অনুমতি দিয়েছে ধর্মঘট আহ্বানকারীরা। ফলে আটকা পড়া ১৬৮৬ একক রপ্তানি কনটেইনার গতকাল জাহাজীকরণ সম্ভব হয়েছে। ফলে নির্দিষ্ট কনটেইনার নিয়ে গতকাল ছয়টি জাহাজ বন্দর ছেড়ে গেছে। এর বিপরীতে প্রতিদিন দেশের কারখানায় উত্পাদিত কোটি কোটি টন রপ্তানি পণ্য বের হতে না পেরে কারখানাতেই আটকা পড়ে আছে।


মন্তব্য