kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সংসদে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী

পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজের ৩৮ ভাগ অগ্রগতি হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজের শতকরা ৩৮ ভাগ অগ্রগতি হয়েছে। স্প্যান নির্মাণের মাধ্যমে আগামী ডিসেম্বর কিংবা জানুয়ারি নাগাদ সারা দেশের মানুষের সামনে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ দৃশ্যমান হবে।

গতকাল রবিবার জাতীয় সংসদে সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে গতকাল রবিবার জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ ও পীর ফজলুর রহমান সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ে পৃথক সম্পূরক প্রশ্ন উত্থাপন করেন। জবাবে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি চালকও নই, গাড়ির মালিকও নই। এর পরও আমি সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের প্রাণহানির দায় স্বীকার করে নিয়েছি। দেশের মহাসড়কগুলোতে সড়ক দুর্ঘটনার কারণ নির্ণয় করে তা রোধে বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। সমীক্ষার মাধ্যমে মোট ২২৭টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৮টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থানের প্রতিকারমূলক কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। মহাসড়কে যানবাহন চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারী অবৈধ স্থাপনা, হাট, বাজার অপসারণ করা হচ্ছে। ’

সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য নাভানা আক্তারের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজের অগ্রগতি জানান। আরেক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, এলেঙ্গা থেকে রংপুর পর্যন্ত ১৯০ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করতে প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে, যা দুর্ঘটনা এড়াতে সহায়ক হবে।

সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম মিলনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, মহাসড়কে প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ১৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন। জাসদের সংসদ সদস্য শিরীন আক্তারের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ফুটপাত যদি আমরা পথচারীদের জন্য ছেড়ে দিতে না পারি, তবে যতই ফ্লাইওভার, মেট্রো রেল নির্মাণ করি না কেন, কোনো লাভ হবে না। ঢাকায় ৫০ হাজার ছোট যানের লাইসেন্স থাকলেও চলে ২০ লাখেরও ওপরে। এসব অবশ্যই সাহসের সঙ্গে আমাদের নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। ’

জাসদের সংসদ সদস্য এ কে এম রেজাউল করিম তানসেনের পৃথক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী জানান, উদ্বোধনের পর বঙ্গবন্ধু সেতু মেরামত বাবদ চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ৭৬৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে।


মন্তব্য