kalerkantho


টুইটারের কাছে বিভিন্ন দেশের তথ্য চাওয়ার হার বাড়ছে

ছয় মাসে বাংলাদেশ কোনো অনুরোধ করেনি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



টুইটারের কাছে বিভিন্ন দেশের সরকারের তথ্য চাওয়ার হার বাড়ছে। গত বৃহস্পতিবার টুইটার প্রকাশিত ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বছরে দুই বার টুইটার এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এ বছরের প্রথমার্ধে, অর্থাৎ জানুয়ারি থেকে জুন এই ছয় মাসে ৭৫টি দেশ থেকে তথ্য সরানোর ও ১৬টি দেশ থেকে টুইটার অ্যাকাউন্ট সরানোর অনুরোধ গেছে টুইটারের কাছে। তবে ওই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে টুইটারের কাছে তথ্য চেয়ে বা অ্যাকাউন্ট সরানোর কোনো অনুরোধ যায়নি।

অবশ্য গত বছরের শেষ ছয় মাসে, অর্থাৎ ২০১৫ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর মাসে টুইটারের কাছে ১০টি অনুরোধ পাঠায় সরকার। এর মধ্যে ২৫টি নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্ট ছিল। বাংলাদেশের অনুরোধের ৬০ শতাংশ সাড়া দেওয়া হয় বলে টুইটারের ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা আছে।

এ বছরের প্রথম ছয় মাসে ভারত সরকার ১৩৯টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়ে ও ৪২টি অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলার অনুরোধ করে। টুইটার ভারতের অনুরোধে সাড়া দেয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের করা দুই হাজার ৫২০টি অনুরোধের মধ্যে ৪৪ শতাংশ ক্ষেত্রে সাড়া দিয়েছে টুইটার।

বেশি অনুরোধ যাওয়া দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে জাপান (৭৩২), যুক্তরাজ্য (৬৩১), ফ্রান্স (৫৭২) ও তুরস্ক (২৮০)।

টুইটারের প্রতিবেদনে জানানো হয়, সরকারের কাছ থেকে আগের ছয় মাসের চেয়ে এ বছর অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়ে অনুরোধ পাওয়ার হার ২ শতাংশ বেড়েছে।

এ বছর নতুন দেশ হিসেবে অনুরোধ গেছে বারমুডা, চেক রিপাবলিক, এস্তনিয়া, জর্ডান, মেসিডোনিয়া, মাল্টা ও মঙ্গোলিয়া থেকে।

টুইটার বলছে, ২০১২ সালের জানুয়ারি মাস থেকে ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদন দেওয়ার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ৭৭টি দেশের সরকার তথ্য চেয়ে বা অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলার অনুরোধ জানিয়েছে। এ বছর অ্যাকাউন্ট মুছে দেওয়ার অনুরোধ ১৩ শতাংশ। সূত্র : আইএএনএস।


মন্তব্য