kalerkantho


গুলশানে হামলার আগে পাঁচ জঙ্গির ধারণ করা ভিডিও প্রকাশ

উৎস খতিয়ে দেখছে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার ঘটনার আগে ধারণ করা পাঁচ জঙ্গির ভিডিও চিত্র প্রকাশ করা হয়েছে। ওই পাঁচজনই হামলার পর অভিযানে নিহত হয়েছে।

জঙ্গি তত্পরতা নজরদারিবিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা সাইট ইন্টেলিজেন্স জঙ্গি সংগঠন আইএসের কথিত সংবাদ সংস্থা আমাকের বরাত দিয়ে শুক্রবার মধ্যরাতে ওই ভিডিও প্রকাশের তথ্য জানিয়েছে। ১৪ মিনিট ৫৮ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে আরবি ও বাংলায় বক্তব্য দেওয়া হয়েছে। ভিডিওর প্রথম ৯ মিনিটে বাংলাদেশের আলেমসমাজের সমালোচনা করা হয়েছে। ভিডিওর শেষ অংশে পাঁচ জঙ্গির বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে কয়েকজন ইসলামী চিন্তাবিদের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, শোলাকিয়ার ইমামসহ কয়েকজনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের বক্তৃতা তুলে ধরা হয়েছে।

ওই ভিডিওতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনসহ বিশ্বনেতাদের ছবি ব্যবহার করে তাঁদের ‘কাফের’ হিসেবে চিহ্নিত করে বলা হয়, মুসলিমদের তাঁদের প্রতি কঠোর হতে হবে।

গতকাল শনিবার বাংলাদেশের গণমাধ্যমে ওই ভিডিও চিত্রের খবর প্রচারিত হয়েছে। ঢাকায় পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, ভিডিও চিত্রটির উৎস খুঁজে বের করতে এরই মধ্যে তদন্ত শুরু করেছেন তাঁরা। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের উপকমিশনার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এই ভিডিওটি আমাদের নজরে এসেছে। এর উৎস কী, তাদের সঙ্গে কারা জড়িত তা খতিয়ে দেখা হবে। এটি কোন সময় ধারণ করা হয়েছে এবং কারা করেছে সেটিও দেখতে হবে। ’ এক প্রশ্নের জবাবে মহিবুল ইসলাম বলেন, ‘জঙ্গিরা এখন দুর্বল হয়ে গেছে। তাই হয়তো প্রপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে। ’ 

সাইট ইন্টেলিজেন্সের ওয়েবসাইটে ওই ভিডিও চিত্রটি এখন দেখা যায় না। আইটি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওই ভিডিওর বাংলাদেশের লিংক বন্ধ করে রাখা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই হামলার কয়েক দিন আগে জঙ্গিদের বক্তব্যের এই ভিডিও চিত্র ধারণ করা হয়।

একটি সূত্রে জানা যায়, ভিডিওতে বলা হয়েছে, মুসলিম নারী-পুরুষ ও শিশুদের রক্তে রঞ্জিত ক্রুসেডাররা মুসলিমদের প্রতি তাদের চরম উপহাস হিসেবে বাংলাকে তাদের মনোরঞ্জনের স্থান হিসেবে বেছে নেয়। তাই তারা (পাঁচ জঙ্গি) ঢাকার গুলশানে হামলা চালিয়েছিল। ভিডিওতে গুলশান হামলায় নিহত পাঁচ জঙ্গির মধ্যে মোবাশ্বের ও নিবরাসকে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করতে এবং ভারী অস্ত্রসহ ছুরি হাতে দেখা গেছে। গুলশান হামলার পর প্রকাশিত ছবিতে জঙ্গিদের যে পোশাক ও জায়গা দেখা গিয়েছিল, সেই একই পোশাকে পাঁচ জঙ্গির বক্তব্যের ভিডিও ধারণ করা হয়। ভিডিও ধারণ করার জায়গাও একই বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভিডিওটিতে নিবরাস বলছে, ‘মানুষ আমাদের সম্পর্কে কী ভাবছে অথবা কী বলছে তাতে আমাদের কিছু যায়-আসে না। ’

পুলিশের সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, গুলশান হামলার পর নিহত পাঁচ জঙ্গির ছবি যে সূত্র থেকে প্রচার করে সাইট ইন্টেলিজেন্স, সেই একই সূত্র থেকে এই ছবি ছড়ানো হচ্ছে। এসব ছবি তাদের হাতে থাকলেও তখন প্রচার করেনি। ধারাবাহিক অভিযানে ঝিমিয়ে পড়া নব্য জেএমবির সদস্যদের ফের চাঙ্গা করতে একটি চক্র ভিডিও ছেড়েছে। আগের ছবিগুলো প্রচারের সঙ্গে পলাতক জঙ্গি মারজান, রাজীব গান্ধীসহ কয়েকজন জড়িত। তারাই ওই ভিডিও দেশে ও দেশের বাইরে ছড়িয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গত ১ জুলাই রাজধানী গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলা চালানো হয়। জঙ্গিদের হামলায় ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জন নিহত হন। জঙ্গিবিরোধী অভিযানে অংশ নেওয়া দুই পুলিশ কর্মকর্তাও নিহত হন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যৌথ অভিযানে পাঁচ জঙ্গিসহ ছয়জন নিহত হয়।


মন্তব্য