kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নিজের পরিচয় প্রকাশে...

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নিজের পরিচয় প্রকাশে...

ধরুন, কোনো মিটিং বা ইন্টারভিউয়ে আপনাকে বলা হলো, নিজের সম্পর্কে কিছু বলুন। খুব সহজ শোনায়।

কিন্তু কাজটি সবচেয়ে কঠিন হয়ে ওঠে। আপনি নিজের সম্পর্কে বলার কিছু খুঁজেই পাবেন না। মানুষের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার কাজটি সহজ। ‘হাই-হ্যালো’ বা ‘কেমন আছেন’ কথাগুলোর মাধ্যমেই পরিচয়পর্বের কাজ সেরে ফেলা যায়। কিন্তু এমন পরিচয়ে আপনি খুব বেশি প্রভাব ছড়াতে পারবেন না। কিংবা পরে আপনার কথা কেউ মনে রাখবে না। মানুষ তার আচার-আচরণের মাধ্যমেই অন্যের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। আর তা পরিচয়কালেই ঘটতে পারে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ের বিশেষজ্ঞ লিসা বি মার্শাল তিনটি পরামর্শ দিচ্ছেন। এগুলোর প্রয়োগে সদ্য পরিচিতদের স্মৃতিতে ঠাঁই নেবেন আপনি।

১. পরিচয়ে দক্ষতা তুলে ধরুন কৌশলে : কোনো প্রেজেন্টেশনে আপনার পরিচয় দিতে হবে। ‘ধরুন, আমি বললাম, হ্যালো, আমি মিলার এবং মার্কেটিং নিয়ে কাজ করি। কিন্তু এ কথা অনেকে আপনার বিজনেস কার্ড থেকেই জেনে ফেলেছে। এ কথা আবার মুখে বলতে হবে কেন? এই সুযোগে অন্য কিছু বলুন, যা ওই কার্ডে লেখা নেই। ’ এভাবেই ব্যাখ্যা করলেন লিসা।

তাহলে কী বলা যায়? ‘হ্যালো, আমি মিলার। মার্কেটিং খাতে আমি ১৫ বছরের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। এ বিষয়ে আমার দক্ষতাই আজ এখানে আনার সুযোগ করে দিয়েছে। আপনাদের সঙ্গে দারুণ কিছু আইডিয়া আমি শেয়ার করতে পারব বলে আশা করছি। ’ লিসার মতে, এমন চটপটে কথাগুলো অনায়াসেই সবার চোখে একজন আত্মবিশ্বাসী ব্যক্তিত্ব হিসেবে তুলে ধরবে আপনাকে। পরিচয় তুলে ধরতে এর চেয়ে স্মার্ট উপায় কী আর হতে পারে?

২. ভিন্ন ব্যক্তিত্ব ফুটিয়ে তুলুন : মেকি ভাব থাকলে চলবে না। এমন উপায়ে পরিচিত হবেন যেন আপনাকে আজীবন মনে রাখে অন্যরা। কোনো কনফারেন্স বা দলের মাঝে থাকা অবস্থায় নিজের ব্যক্তিত্বের ভিন্নতা প্রকাশ করুন। আপনার পদবি বা কম্পানি নিয়ে অন্যের কোনো মাথাব্যথা নেই। একজন করপোরেট হিসেবে তাদের মাঝে স্থান করে নিতে পারবেন ব্যক্তিত্ব দিয়ে। আলাপচারিতায় পরিচয়পর্বে নাম তো বলতেই হবে। কম্পানি বা পদবির নাম কয়েকজনের আড্ডায় প্রকাশের প্রয়োজন হয় না। দিলখোলা মনে কথা বলুন। কারণ আপনি মঞ্চে উঠে কোনো বক্তব্য দিচ্ছেন না। বন্ধুসুলভ আচরণ বজায় রাখবেন।

৩. নিজের সংস্কৃতি বজায় রাখুন : যদি কোনো আন্তর্জাতিক সভায় যোগ দিতে যান, তবে নিজের সংস্কৃতির প্রকাশ ঘটাতে ভুল করবেন না। নিজ সংস্কৃতির লালনকে সবাই সমীহের চোখে দেখেন। আবার কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের যৌথ আয়োজনে নিজের মতো থাকুন। কাউকে অনুসরণ করতে যাবেন না। কথোপকথনে খুব বেশি ব্যঙ্গাত্মক ভাব প্রকাশ করবেন না। অন্যদের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকুন। আবার হালকা কৌতুকের মাধ্যমে হাস্যরসের স্বাদ দিতে ভুলবেন না।

ওই আয়োজনে আপনি কেন এসেছেন তার কারণ বলতে পারেন। এতে আপনার দক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা প্রকাশ পেয়ে যাবে। নিজের বিশেষত্বের জানান দিন। অনায়াসে সদ্য পরিচিতের কাছে চিরচেনা হয়ে উঠুন।

বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার।


মন্তব্য