kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


৪০ কোটি টাকার পণ্য পুনরায় রপ্তানি শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



৪০ কোটি টাকার তৈরি পোশাক পণ্য পুনরায় রপ্তানির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। হ্যানজিন শিপিং কম্পানির কনটেইনার থেকে এসব পণ্য অন্য কম্পানির কনটেইনারে স্থানান্তর করা হচ্ছে।

চট্টগ্রাম বন্দরের ইয়ার্ডে এ কাজ গত বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে। এরপর কনটেইনার ভর্তি এসব পণ্য জাহাজীকরণ করে যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির উদ্দেশে নির্ধারিত গন্তব্যে রওনা দেবে।

উল্লেখ্য, ৭৩টি কনটেইনারে ভর্তি পণ্যগুলো হ্যানজিন শিপিং কম্পানির কনটেইনারে পরিবহন করায় এসব পণ্য শ্রীলঙ্কার কলম্বো বন্দরে নামতে দেওয়া হয়নি। দেউলিয়া হওয়ায় দক্ষিণ কোরিয়ার এই শিপিং কম্পানির জাহাজ ও কনটেইনারকে বিশ্বের কোনো বন্দরে ভিড়তে দেওয়া হচ্ছে না। পরে পণ্যগুলো চট্টগ্রাম বন্দরে ফেরত আনা হয় ১২ সেপ্টেম্বর। এর পর থেকেই পণ্যগুলো পুনরায় রপ্তানির প্রক্রিয়া শুরু হয়।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক (বন্দর ও কাস্টমস) খায়রুল আলম সুজন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রপ্তানি পণ্যগুলো হ্যানজিনের কনটেইনার থেকে আরেকটি কনটেইনারে স্থানান্তরে আইনি জটিলতা সহজ করে একটি নির্দেশনা দেয় কাস্টমস। এর পরিপ্রেক্ষিতেই আমরা পণ্য স্থানান্তরের কাজ শুরু করি। ’

খায়রুল আলম জানান, চট্টগ্রাম বন্দর ইয়ার্ডে রপ্তানি পণ্য কনটেইনারে স্থানান্তরের সুযোগ নেই। তার পরও রপ্তানিকারকদের সহযোগিতা করতে এ সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, রপ্তানি পণ্যভর্তি এই ৭৩ একক কনটেইনার গত ৩১ আগস্ট ওইএল মালয়েশিয়া জাহাজে করে শ্রীলঙ্কার কলম্বো বন্দরে পাঠানো হয়। এরপর সেখান থেকে বড় জাহাজে যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানিতে নেওয়ার কথা ছিল; কিন্তু সেগুলো ফেরত আনা হয়। এসব কনটেইনারে দেশের ৪৭টি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের ৫০ লাখ মার্কিন ডলারের তৈরি পোশাক শিল্পের পণ্য রয়েছে। বাংলাদেশি টাকায় যা ৪০ কোটি টাকার বেশি। এর মধ্যে আড়াই লাখ মার্কিন ডলারের রপ্তানি পণ্য জামার্নির ক্রেতাদের কাছে এবং বাকি পণ্য যুক্তরাষ্ট্রের ক্রেতাদের কাছে পাঠানোর কথা রয়েছে। ৪৭টি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে এনভয় গ্রুপ, এশিয়ান গ্রুপ, বিএসএ গ্রুপ, ওনাস গ্রুপ, ইয়াংওয়ান গ্রুপ, জয় জয় মিলস বাংলাদেশ লিমিটেড ও ইসলাম গার্মেন্ট লিমিটেডের পণ্য রয়েছে।

কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, ৪৭ শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৪৩টি প্রতিষ্ঠান কনটেইনার পরিবর্তন করে পণ্য স্থানান্তরের জন্য কাস্টমসে আবেদন করেছে। সব আবেদনই বৃহস্পতিবার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই পণ্য স্থানান্তরের কাজ শুরু হয়েছে।

একাধিক রপ্তানিকারক কালের কণ্ঠকে জানান, বৃহস্পতি ও শুক্রবার প্রস্তুত হওয়ায় সাতটি কনটেইনার আজ শনিবার জাহাজীকরণ করা হবে। বাকিগুলো প্রস্তুত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই জাহাজীকরণ করা হবে। আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে সব কনটেইনার জাহাজীকরণ সম্ভব হবে। কারণ প্রত্যেকেরই নির্দিষ্ট সময়ে পণ্য পৌঁছানোর তাগাদা রয়েছে।


মন্তব্য