kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জলবায়ু চুক্তিতে অনুসমর্থন বাংলাদেশসহ ৩০ দেশের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



জলবায়ু চুক্তিতে অনুসমর্থন বাংলাদেশসহ ৩০ দেশের

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে অনুসমর্থন দিতে যাচ্ছে বাংলাদেশসহ অন্তত ৩০ দেশ। এর মাধ্যমে গতকালই ওই দেশগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে এ চুক্তিতে যোগ দেওয়ার কথা।

জাতিসংঘের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এদিকে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্র ও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সহায়তার জন্য গত মঙ্গলবার নতুন একটি তহবিল চালু করেছে কমনওয়েলথ।

জাতিসংঘ জানিয়েছে, অন্তত ৩০টি দেশ জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ওই চুক্তিতে তাদের অনুসমর্থন পেশ করবে। এর মধ্যে রয়েছে লাতিন আমেরিকার আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল ও মেক্সিকোর মতো দেশগুলো। এ ছাড়া বাংলাদেশ, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড ও সংযুক্ত আরব আমিরাতও রয়েছে এই তালিকায়।

সম্প্রতি বিশ্বের ৪০ শতাংশ কার্বন ডাই-অক্সাইড নিঃসরণকারী দুই দেশ চীন ও যুক্তরাষ্ট্র এ চুক্তি অনুসমর্থন করে। চীনের শহর হাংচৌতে এক অনুষ্ঠানে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের হাতে অনুসমর্থনের দলিল তুলে দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং চীনা প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং।

বিশ্বের ১৮০টি দেশের সমর্থনে করা প্যারিস জলবায়ু চুক্তির মূল লক্ষ্য বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি রোধ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র দেশগুলোকে অর্থসহায়তা দেওয়া। গত বছরের ডিসেম্বরে ঐতিহাসিক এই চুক্তিতে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির গড় হার ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে বা সম্ভব হলে ১.৫ ডিগ্রির মধ্যে রাখতে বিশ্বের দেশগুলো একমত হয়।

প্যারিস চুক্তি হচ্ছে বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক প্রথম সমন্বিত চুক্তি। তবে এটি তখনই কার্যকর হবে, যখন মোট কার্বন নিঃসরণের ৫৫ শতাংশের জন্য দায়ী ৫৫টি দেশ চুক্তিটিকে অনুসমর্থন করবে। চীন ও যুক্তরাষ্ট্রকে নিয়ে ২৪টি দেশ এ চুক্তি অনুসমর্থন করে।  

কমনওয়েলথের নতুন তহবিল : জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্র ও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সহায়তার জন্য নতুন একটি তহবিল চালু করেছে কমনওয়েলথ। গত মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে এক অনুষ্ঠানে এই তহবিলের উদ্বোধন করেন কমনওয়েলথ মহাসচিব প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড। মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী আনিরুদ জগনাথও এ সময় উপস্থিত ছিলেন। ‘দ্য কমনওয়েলথ ক্লাইমেট ফিন্যান্স অ্যাকসেস হাব’ নামের এই তহবিলে ২০২০ সালের মধ্যে ১০০ বিলিয়ন ডলার সংগ্রহের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে বলে কমনওয়েলথের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

নতুন জলবায়ু তহবিল নিয়ে কমনওয়েলথ মহাসচিব স্কটল্যান্ড বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে প্যারিস চুক্তি কার্যকরের পথে এটা ‘বাস্তবে এক ধাপ এগিয়ে যাওয়া’। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতির ওপর আলোকপাত করে প্যাট্রিসিয়া দাতা দেশগুলোর ‘তহবিল গঠনে’ সাড়া দেওয়ায় সন্তোষ জানান। সেই সঙ্গে অর্থছাড়ে তাদের দীর্ঘসূত্রতারও সমালোচনা করেন।


মন্তব্য