kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সড়ক দুর্ঘটনা

সাত দিনের মধ্যে মালিকদের কারণ দর্শাতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ঈদের সময় সংঘটিত সড়ক দুর্ঘটনার কারণ দর্শাতে মালিকপক্ষকে সাত দিন সময় দিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

গতকাল রবিবার বিকেলে রাজধানীর এলেনবাড়ীতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত জরুরি বৈঠকে সড়কমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘এখানে কি চালকের দোষ? নাকি গাড়ির ফিটনেস নেই। গতি বেশি ছিল, নাকি রাস্তা খারাপ। সব কিছু সঠিকভাবে তুলে ধরে আগামী সাত দিনের মধ্যে মালিকপক্ষকে লিখিত আকারে জানাতে হবে। আর বিআরটিএ দেখবে যানবাহনের ফিটনেস ছিল কি না। তাদের লাইসেন্স সঠিক কি না। ’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি রাস্তা ভালো করেছি, আর ড্রাইভাররা ভালো রাস্তা পেয়ে স্পিড বাড়িয়ে মানুষ মারছে। তারা পাখির মতো, মাছির মতো মানুষ মারছে। আমরা নিয়ম নিয়ে বসে আছি। মানুষ বাঁচানোর জন্য প্রয়োজনে নিয়ম ভাঙতে হবে। ’

ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মো. ফারুক তালুককদার সোহেল, মহাসড়ক পুলিশ কর্মকর্তা এম এ মালেক, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের প্রচার সম্পাদক মো. ইউনুস প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, গতকাল রবিবার কালের কণ্ঠে ‘মুনাফার লোভে মহাসড়কে ঝরছে প্রাণ’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। তাতে মালিকরা অধিক আয়ের আশায় চালকদের বেশি ট্রিপ দিতে বাধ্য করছে বলে উল্লেখ করা হয়। গতকালের বৈঠকে সড়কমন্ত্রীও এ কথা উল্লেখ করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, চালকের মানসিকতার পরিবর্তন না হলে সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব হবে না।

মন্ত্রী বলেন, ‘মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে সড়কে ১৫৭টি প্রাণ ঝরেছে। তাদের মৃত্যুর কথা আমরা অস্বীকার করতে পারব না। রাস্তা খারাপের জন্য দুর্ঘটনা ঘটা এক কথা। আর রাস্তা ভালো হওয়ার পরও দুর্ঘটনা ঘটা খুবই মর্মান্তিক। ’ তিনি বলেন, ‘আসলে অতিরিক্ত ট্রিপের জন্য বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে। মালিকরা মুনাফা করতে গিয়ে সাধারণ মানুষের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে। যত দুর্ঘটনা ঘটেছে, তার কোনোটিই ব্ল্যাক স্পটে ঘটেনি। ’


মন্তব্য