kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রংপুরের বিনোদন কেন্দ্রগুলো গতকালও ছিল ভিড়ে ঠাসা

স্বপন চৌধুরী, রংপুর   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ঈদুল আজহার আমেজ এখনো কাটেনি। ঈদের ছুটির পর এক দিন কর্মদিবস গেছে।

এরপর গতকাল শুক্রবার ও আজ শনিবার আবার দুই দিন সরকারি ছুটি। গতকাল রংপুরের বিনোদনকেন্দ্রগুলো ছিল ভিড়ে ঠাসা।

বিনোদনপিপাসু মানুষের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে নগর থেকে একটু দূরে গড়ে ওঠা কোলাহলমুক্ত প্রয়াস সেনা বিনোদন পার্ক, ভিন্নজগৎ, ফ্যান্টাসি জোন, সিটি চিকলি পার্ক, রংপুর চিড়িয়াখানা, কালেক্টরেট সুরভী উদ্যান, মহিপুরঘাট, তিস্তা সড়ক সেতু পয়েন্ট ও টাউন হল চত্বরে।

রংপুর চিড়িয়াখানায় ভিড় ছিল বিশেষত সিংহের খাঁচা ঘিরে। দর্শনার্থীদের মধ্যে ছিল সম্প্রতি চট্টগ্রাম থেকে নিয়ে আসা সিংহী বর্ষা রানীকে দেখার কৌতূহল।

নগরের নিসবেতগঞ্জের স্মৃতিবিজড়িত রক্ত গৌরব চত্বর ঘাঘট নদীর অংশবিশেষসহ পাশের বিস্তৃত নিচু এলাকায় গড়ে উঠেছে প্রয়াস সেনা বিনোদন পার্কটি। এখানে সেনা সদস্যদের নিখুঁত কারিগরি পরিকল্পনায় বাঁশ ব্যবহার করে সাজানো হয়েছে পার্কের প্রধান ফটক। এ ফটক পেরিয়ে প্রথমেই চোখে পড়বে রকমারি দোকান। ঠিক যেমন সমুদ্রসৈকতে বসে রকমারি পণ্যের পসরা। এখানকার দোকানগুলোতে রয়েছে হস্তশিল্প সামগ্রী, খেলনাসহ নানা পণ্যের সম্ভার। আরো আছে খাবারের দোকান, নদীর বুকে ভাসমান আশির দশকের বেশ কিছু নৌকা নজর কাড়ছে দর্শনার্থীদের। এসব নৌকা এখন আর দেখা যায় না।

অন্যদিকে রংপুর সিটি করপোরেশনের চিকলি পার্কটি বিশাল চিকলি বিলের আশপাশ ঘিরে সাজানো। এখানে রয়েছে শিশু-কিশোরদের আকৃষ্ট করার মতো নানা আয়োজন। বিলের বুকে স্পিডবোট চলছে দ্রুতবেগে। এর ফলে বড় বড় ঢেউ এসে ধাক্কা মারছে বিলের দুই পাড়ে। ছিটকে আসা জলরাশিই ছোট-বড় সবার বিনোদনের খোরাক এই পার্কে।

রংপুর বিনোদন উদ্যান ও চিড়িয়াখানায় গতকাল পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা সিরাজুল ইসলাম নামের এক সরকারি কর্মকর্তা বলেন, ‘ব্যস্ততা কাটিয়ে ছুটির দিনে একটু সময় করে ঘুরতে খুবই ভালো লাগছে। ’ তিনি জানালেন, বিশেষ করে চিড়িয়াখানায় নিঃসঙ্গ সিংহের সঙ্গী হিসেবে চট্টগ্রাম থেকে আনা সিংহী বর্ষা রানীকে দেখতে এসেছেন তাঁরা।

চিকলি পার্কে কথা হয় এক ব্যাংক কর্মকর্তার সঙ্গে। সাম্প্রতিক সময়ের জঙ্গি হামলা ও নাশকতার প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, ‘ঈদের দিন যারা শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠের কাছে সন্ত্রাসী হামলা করে, মানুষ হত্যা করে, ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় তারা তো মানুষ না। ওদের কোনো ধর্ম নেই। আমরা কেউই ভীত নই। ’


মন্তব্য