kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ট্রলার ডুবে প্রাণ গেল ভাইবোনের

বরিশাল অফিস ও রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ট্রলার ডুবে প্রাণ গেল ভাইবোনের

বরিশালের হিজলায় মেঘনা নদীতে ট্রলার ডুবে দুই ভাইবোন প্রাণ হারিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার মৌলভীহাট লঞ্চঘাট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

গতকাল শুক্রবার সকালে দুই শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত দুই শিশু হলো রাজিন (১৪) ও তার বোন সুমাইয়া (১২)। তারা হিজলার খাগেরচর গ্রামের লিটন সরদারের সন্তান।

এদিকে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে গড়াই নদীতে গোসল করতে নেমে ডুবে মারা গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র ও একটি শিশু। গতকাল শুক্রবার বিকেলে উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের কোনাগ্রামে আলাদাভাবে এ দুটি ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আওলাদ-৪ নামের একটি লঞ্চে ওঠার সময় দুর্ঘটনাটি ঘটে। হিজলা থেকে ঢাকাগামী এই লঞ্চটি নদীতে নোঙর করা ছিল। যাত্রীরা ট্রলারে করে গিয়ে লঞ্চটিতে উঠছিল। এ সময় দুটি ট্রলারের সংঘর্ষে একটি ডুবে যায়। ট্রলারটিতে থাকা ৯ যাত্রীর মধ্যে সাতজন সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও রাজিন ও সুমাইয়া নিখোঁজ থাকে। স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় পুলিশ নদীতে তল্লাশি চালিয়ে গতকাল সকাল ১১টার দিকে ঘটনাস্থলের কাছে পুরানঘাট এলাকায় নদী থেকে দুজনের লাশ উদ্ধার করে।

অন্যদিকে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে গড়াই নদীতে গোসল করতে নেমে ডুবে মারা গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র ও একটি শিশু। গতকাল শুক্রবার বিকেলে উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের কোনাগ্রামে এ দুটি ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া দুজন হলো ঢাকার বেসরকারি ইউনাইটেড ইউনিভার্সিটির প্রকৌশল শাখার স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র দীপ্ত বিশ্বাস (২০) ও সৌরভ মুন্সি (৬)। দুজনই গ্রামে বেড়াতে এসেছিল।

দীপ্তর বাবার নাম দেবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস। তিনি পরিবারের সঙ্গে ঢাকায় থাকতেন। সৌরভের দাদার বাড়ি কোনাগ্রামে। তার বাবার নাম সুজন মুন্সি। সে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র। একই উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের খোদ রামদিয়া গ্রামে নানাবাড়ি থাকত সৌরভ।


মন্তব্য