kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিভিন্ন স্থানে আজ ঈদ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন স্থানে আজ সোমবার পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্যাপন করা হচ্ছে। অনেক বছর ধরে শরীয়তপুরের সুরেশ্বর দরবার শরিফ, চট্টগ্রামের মির্জাখিল দরবার শরিফ ও চাঁদপুরের সাদ্রা দরবার শরিফসহ বিভিন্ন দরবার ও পীরের অনুসারী এবং দেশের কিছু সাধারণ মুসলমানও সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উদ্যাপন ও রোজা পালন করে থাকে।

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া; শেরপুর সদর ও ঝিনাইগাতী; ফরিদপুরের বোয়ালমারী ও আলফাডাঙ্গা; ভোলা সদরসহ পাঁচ উপজেলা; মাদারীপুর সদর, শিবচর ও কালকিনি উপজেলা এবং দিনাজপুর সদর, বিরল, কাহারোল, খানসামা ও চিরিরবন্দর উপজেলাসহ বিভিন্ন জেলার শতাধিক গ্রামে আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করা হচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

পিরোজপুর : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার পাঁচটি গ্রামে সুরেশ্বর দরবার শরিফের অনুসারীরা আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করছে। গ্রামগুলো হচ্ছে উপজেলার সাপলেজা ইউনিয়নের ক্ষেতাছিঁড়া, কচুবাড়িয়া, ঝাটিবুনিয়া, চরকগাছিয়া ও ভাইজোড়া গ্রাম। এসব গ্রামের দুই শতাধিক পরিবারের সহস্রাধিক মানুষ সুরেশ্বর দরবার শরিফের অনুসারী রয়েছে। সুরেশ্বর দরবারের অনুসারী স্থানীয় স্কুল শিক্ষক ফারুক হোসেন খন্দকার বলেন, ‘সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আমরা প্রতিবছরই ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা পালন করে থাকি। এবারও সেভাবেই ঈদুল আজহা পালন করা হচ্ছে। এই ঈদ পালনকে ঘিরে পাঁচ গ্রামের মানুষের মধ্যে উৎসবের আমেজ চলছে। তিনি জানান, আজ এই পাঁচ গ্রামের ঈদগাহ মাঠে সকাল ৯টায় পাঁচটি পৃথক জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

শেরপুর : শেরপুরের ছয়টি গ্রামের সুরেশ্বর দরবারের ভক্ত ও মুরিদরা আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করছে। গ্রামগুলো হচ্ছে শেরপুর সদর উপজেলার চরখারচর, মুন্সীরচর ও বামনের চর; ঝিনাইগাতী উপজেলার বনগাঁও চতল এবং নালিতাবাড়ী উপজেলার নন্নী মধ্যপাড়া ও চিনামারা। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সকাল ৮টা থেকে ১০টার মধ্যে এসব গ্রামে ঈদের নামাজ আদায় করবে মুসল্লিরা। স্থানীয়রা জানায়, ঈদুল আজহায় নন্নী মধ্যপাড়া গ্রামের সুরেশ্বর দরবার শরিফের নারী ভক্তরাও পৃথক ঈদ জামাতে অংশ নেবে।

ফরিদপুর : বোয়ালমারী উপজেলার ১০টি গ্রামের দেড় সহস্রাধিক মানুষ আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করছে। গ্রামগুলো হলো শেখর ইউনিয়নের সহস্রাইল, মাইটকুমড়া, রাখালতলী ও বারাংখোলা, কাটাগড় এবং পাশের আলফাডাঙ্গা উপজেলার শুকুরহাটি। কাটাগড় গ্রামের বাসিন্দা ও আলফাডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মাহিদুল হক বলেন, ওই ১০ গ্রামের দেড় সহস্রাধিক মানুষ চট্টগ্রামের মির্জাখিল শরিফের অনুসারী হিসেবে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উদ্যাপন করে থাকে।

ভোলা : দ্বীপজেলা ভোলার পাঁচ উপজেলার ১৪টি গ্রামের প্রায় তিন হাজার পরিবার আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করছে। সুরেশ্বর দরবারে মুরিদ ও ভোলা জেলার দায়িত্বে নিয়োজিত খলিফা মজনু মিয়া কালের কণ্ঠকে জানান, আজ সকাল ৯টায় বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী গ্রামে তাঁর বাড়ির আঙিনায় ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে। তিনি নিজেই ওই জামাতে ইমামতি করবেন। একই সঙ্গে ওই গ্রামের চৌকিদারবাড়ির জামে মসজিদে সকাল ৯টায় এবং পঞ্চায়েত বাড়ির জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে অন্যান্য গ্রামে তাদের অনুসারীরা ঈদের নামাজ পড়বে। সুরেশ্বর দরবারের মুরিদ বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার হারুন অর রশিদ বলেন, ‘আমাদের মতে পৃথিবীর যেকোনো স্থানে চাঁদ দেখা গেলেই রোজা রাখা এবং ঈদ উদ্যাপন করা যায়। সে অনুযায়ী আমরা প্রতিবছর এক দিন আগে রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা পালন করে আসছি। ’

মাদারীপুর : মাদারীপুরের ৫০ গ্রামে সুরেশ্বর দরবার শরিফের অনুসারীরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করবে। সুরেশ্বর দরবারের প্রধান গদিনশিন পীর আলহাজ খাজা শাহ্ সুফী সৈয়্যেদ নূরে আক্তার হোসাইন জানান, মাদারীপুর ও শরীয়তপুর জেলাসহ বাংলাদেশের প্রায় এক কোটি ধর্মপ্রাণ মুসলমান আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করবে।

শরীয়তপুর দরবারের অনুসারী মাদারীপুর সদর উপজেলার পাঁচখোলা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার মোল্যা জানান, মাদারীপুর সদর, কালকিনি ও শিবচর উপজেলার পাচ্চর, স্বর্ণকারপট্টিসহ মাদারীপুর জেলার তিনটি উপজেলার প্রায় ৫০ গ্রামের অর্ধলক্ষাধিক মুসলমান আজ সোমবার ঈদুল আজহা উদ্যাপন করবে। সদর উপজেলার চরকালিকাপুর গ্রামের মো. হাশেম মাস্টার জানান, সুরেশ্বরের অনুসারীরা দেড় শ বছর আগে থেকে এভাবে ঈদ উদ্যাপন করে আসছে।

দিনাজপুর : দিনাজপুর সদর, বিরল, কাহারোল, খানসামা ও চিরিরবন্দর—এই পাঁচটি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে আজ ঈদুল আজহা উদ্যাপন করা হচ্ছে। আজ সকাল সাড়ে ৮টায় দিনাজপুর শহরে সপরিবারে নামাজ আদায়ের প্রস্তুতি নিয়েছেন দুই শতাধিক মুসলিম। তবে এরা বিশেষ কোনো পিরের অনুসারী নয় বলে জানা গেছে। একই সময়ে কাহারোল উপজেলার জয়নন্দহাট, মুকুন্দপুর, গড়েয়াবাজার মাঠ, চিরিরবন্দর উপজেলার সাইতাড়া রাবার ডেম মাঠ, খানসামার পাকেরহাট, বিরলের বালান্দর গ্রামের অনুসারীরা ঈদের নামাজ আদায় করবেন বলে জানা গেছে।


মন্তব্য