kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বরিশালে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে যুবককে হত্যা

বরিশাল অফিস   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বরিশালের মুলাদীতে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার রাতে উপজেলার শফিপুর ইউনিয়নের উত্তর বালিয়াপুর এলাকায় এই হত্যাকাণ্ড ঘটে।

এই ঘটনায় তাঁর ছোট ভাইও আহত হয়েছেন।

নিহত যুবকের নাম মো. আনিচ হাওলাদার (৪০)। তিনি উপজেলার উত্তর বালিয়াপুর গ্রামের মৃত মোতালেব  হোসেন হাওলাদারের ছেলে। তাঁর ছোট ভাই দাদন হাওলাদারকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আনিচের ছোট ভাই শামীম আহমেদ প্রাচুর্য বাদী হয়ে ৩১ জনকে আসামি করে মুলাদী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের মধ্যে আক্তার হোসেন নামের একজনকে গতকাল শনিবার দুপুরে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মুলাদী থানার ওসি মতিয়ার রহমান জানান, শত্রুতার জের ধরে আনিচকে হত্যা করা হয়েছে বলে তাঁরা ধারণা করছেন।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার বিকেলে আনিচ ও তাঁর ছোট ভাই দাদন বাড়ি থেকে স্থানীয় আনন্দ বাজারে যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে মহসিন নামের এক ব্যক্তির নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত দুই ভাইকে অস্ত্রের মুখে ওই এলাকার আলমগীর কবিরাজের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে দুই ভাইকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বজনরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আনিচ ও দাদনকে উদ্ধার করে মুলাদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আনিচকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে দাদনের অবস্থা আশঙ্কাজন হওয়ায় তাঁকে শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। গতকাল সকালে তাঁকে পাঠানো হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

স্থানীয় লোকজন জানায়, কয়েক মাস আগে মহসিনের সমর্থক আলমগীর ওই এলাকার রিপন নামের এক যুবককে ঘর থেকে ধরে নিয়ে হত্যা করেছিল। ওই ঘটনায় আলমগীর কবিরাজকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। কয়েক দিন আগে সে জামিনে মুক্তি পায়। আলমগীর সন্দেহ করে, আনিচ ও দাদন তাঁকে ধরিয়ে দিয়েছেন।

মুলাদী থানার ওসি মতিয়ার রহমান বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।   আসামিদের গ্রেপ্তারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে।


মন্তব্য