kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দেড় বছরের শিশুকে পুড়িয়ে মারল দাদি!

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর হামড়াতলা এলাকায় পেট্রল ঢেলে দেড় বছরের এক শিশুকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিশুটির নাম ফাতিম।

গত বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। একই সঙ্গে শিশুটির সত্মা সীমা (৩০) অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। তাঁকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দাদি মনোয়ারা বেগম মনু (৫৫) ও তাঁর বোন মুসলিমা বেগমকে আটক করেছে পুলিশ।

রাতে পরিকল্পিতভাবে পেট্রল ঢেলে ঘরে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে পেট্রলের একটি খালি পাত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

শিশুটির মা রোজিনা খাতুন জানান, তাঁর স্বামী আল আমিন বিশ্বাস মালয়েশিয়া প্রবাসী। সংসারে তাঁর দুই সতিন রয়েছেন। এ অবস্থায় শিশুসন্তান ফাতিমকে নিয়ে বাপের বাড়ি বাঘারপাড়া উপজেলার খলসি গ্রামে থাকেন তিনি। ১৫ দিন আগে শিশু ফাতিমকে নিয়ে যান তাঁর শাশুড়ি মনোয়ারা বেগম। কয়েক দিন পর ছেলেকে ফেরত চাইলে শাশুড়ি বলেন, ‘ওকে আর যেতে দেব না, খুব দেখার ইচ্ছা হলে নরেন্দ্রপুর এসে দেখে যেতে হবে। ’ এরপর বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মোবাইলফোনে তাঁর শাশুড়ি তাঁকে জানান, কেরোসিন ল্যাম্পের আগুন থেকে ঘরে আগুন লেগে ফাতিম মারা গেছে। গতকাল শুক্রবার সকালে তিনি শ্বশুরবাড়ি গিয়ে দেখেন তাঁর সন্তান আগুনে পুড়ে মারা গেছে। রোজিনা খাতুন অভিযোগ করে আরো বলেন, ‘আমার শাশুড়ি মনোয়ারা বেগম পরিকল্পিতভাবেই ঘরে আগুন দিয়ে আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। ’  একই অভিযোগ করেন শিশুটির নানা ইসমাইল মোল্যা।

স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে শিশু ফাতিম তার সত্মা সীমার সঙ্গে ওপরে টালি দেওয়া মাটির ঘরে ঘুমিয়েছিল। গভীর রাতে সেখানে আগুনে পুড়ে শিশুটি মারা যায় ও সীমা দগ্ধ হন।

এ ব্যাপারে নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপপরিদর্শক সোহরাব হোসেন বলেন, ‘ঘরের ভেতর তোষক, কাঁথা আর বালিশ এবং সীমার শাড়ি পুড়ে যায়। সেখান থেকে পেট্রলের একটি খালি পাত্র উদ্ধার করা হয়েছে। রাতে পরিকল্পিতভাবেই পেট্রল ঢেলে ঘরে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া গেলে প্রকৃত ঘটনা জানা সম্ভব হবে। ’ এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে মনোয়ারা বেগম ও তাঁর বোন মুসলিমা বেগমকে আটক করা হয়েছে।


মন্তব্য