kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অত্যাধুনিক অস্ত্র-সরঞ্জাম আসছে পুলিশের জন্য

সরোয়ার আলম   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



অপরাধের ধরন পাল্টেছে। অপরাধীরা অত্যাধুনিক অস্ত্র ও সরঞ্জাম ব্যবহার করছে।

ইন্টারনেটে নিত্যনতুন অ্যাপসের সহযোগিতায় অপরাধ কর্মকাণ্ড চালানো হচ্ছে। আর ওই সব অপরাধীকে মোকাবিলায় আরো সামর্থ্য অর্জনের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ বাহিনী। বিশেষ করে গুলশান ও শোলাকিয়া হামলার পর পুলিশ বাহিনী নিজেদের আরো অত্যাধুনিক সরঞ্জামে সজ্জিত হয়ে চৌকস বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে। যেকোনো ধরনের অপরাধ, বিশেষ করে জঙ্গি মোকাবিলায় পুলিশের জন্য আনা হচ্ছে অত্যাধুনিক অস্ত্র ও সরঞ্জাম। আর্মার্ড পার্সোনেল ক্যরিয়ার (এপিসি), আর্মার্ড-ফোর গাড়ি, অত্যাধুনিক নেটগান, আধুনিক দুরবিন, বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট, গ্যাসগান ও ছোট অস্ত্র আনার উদ্যোগ এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে। পুলিশ কর্মকর্তারা বলেছেন, চীন ও আমেরিকা থেকে আগামী দুই মাসের মধ্যে অস্ত্র-সরঞ্জামগুলো বাংলাদেশে চলে আসবে।

এ প্রসঙ্গে পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক বলেন, ‘পুলিশকে বাহিনী হিসেবে আরো আধুনিক করতে নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। অত্যাধুনিক অস্ত্রের পাশাপাশি নানা ধরনের সরঞ্জাম আনা হচ্ছে। এতে করে আমাদের সক্ষমতা আরো বাড়বে। ’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পুলিশ বিভাগকে আধুনিকায়ন করতে সরকার নানা উদ্যোগ নিয়েছে। আন্ডারওয়ার্ল্ড অপরাধীদের অপরাধের ধরনও পাল্টে গেছে। এখন সন্ত্রাসীরা অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। পাশাপাশি জঙ্গি তত্পরতাও বেড়ে গেছে। মাঝেমধ্যে দেখা যায়, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বড় ধরনের অভিযান চালাতে গিয়ে উন্নত মানের আগ্নেয়াস্ত্র বা সরঞ্জাম না থাকায় অপরাধীদের বাগে আনতে গলদঘর্ম হচ্ছে। দুুর্বৃত্তরা পুলিশের ওপর চোরাগোপ্তা হামলা চালিয়ে পুলিশকে ঘায়েল করার চেষ্টা চালাচ্ছে। পুলিশও সেগুলো মোকাবিলা করার চেষ্টা চালাচ্ছে। অনেক জেলায়ই অত্যাধুনিক অস্ত্রের অভাবে সন্ত্রাস দমনে হিমশিম খেতে হচ্ছে পুলিশকে। সম্প্রতি গুলশান, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া, মিরপুরের কল্যাণপুর, নারায়ণগঞ্জ ও সর্বশেষ পল্লবীর রূপনগরে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাতে গিয়ে পুলিশকে সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়। বিশেষ করে গুলশানে জঙ্গি হামলায় অনেকটাই বেকায়দায় পড়ে পুলিশ। সারা রাত অভিযান চালিয়েও জঙ্গিদের কাবু করতে পারেনি পুলিশ। পরে সেনাবাহিনী অত্যাধুনিক সরঞ্জাম ব্যবহার করে জঙ্গিদের পরাস্ত করে। এর পরই পুলিশ সিদ্ধান্ত নেয়, তাদের বাহিনীর জন্য অত্যাধুনিক অস্ত্র ও সরঞ্জাম আনা হবে। গত সপ্তাহে অস্ত্র ও সরঞ্জাম আনতে ডিএমপি একটি প্রস্তাবনা পাঠিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তরে। পুলিশ সদর দপ্তরও ইতিবাচক প্রদক্ষেপ নিয়ে এগুলো ক্রয় করতে কয়েক দিনের মধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবহিত করবে।

এ প্রসঙ্গে পুলিশ সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ক্ষুদ্র অস্ত্রের মধ্যে ‘এমপিফাইভ’ নামের অত্যাধুনিক অস্ত্র আসছে বাংলাদেশে। এসব অস্ত্র মূলত আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই ব্যবহার করে। ’


মন্তব্য