kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর সাফল্য

শ্যাওলা থেকে জ্বালানি উদ্ভাবন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



শ্যাওলাকে জৈব জ্বালানিতে রূপান্তরের জন্য সফটওয়্যার উন্নয়ন ও তাত্ত্বিক পদ্ধতি উদ্ভাবনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে পুরস্কার লাভ করেছেন বাংলাদেশি এক বিজ্ঞানী। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব নিউ অরলিন্সের (ইউএনও) কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. তামজিদুল হক।

গুরুত্বপূর্ণ এই উদ্ভাবনের জন্য ড. তামজিদকে যুক্তরাষ্ট্রের লুসিয়ানা বোর্ড অব রিজেন্টস ‘ইন্ডাস্ট্রিয়াল টাইস রিসার্চ সাবপ্রোগ্রাম’-এর অধীনে এই পুরস্কার দিয়েছে। এ পুরস্কারের অর্থমূল্য এক লাখ ৪১ হাজার ৪৫৩ মার্কিন ডলার। ঢাকায় পাওয়া এক বার্তায় জানা যায়, এ ছাড়া ড. তামজিদ তিন বছর মেয়াদি প্রাতিষ্ঠানিক মঞ্জুরি হিসেবে পৃথক ৩৬ হাজার ৭২০ মার্কিন ডলার পাবেন।

ড. তামজিদুল হক বলেন, অন্য যেকোনো প্লান্টের তুলনায় জৈব জ্বালানি হিসেবে শ্যাওলার রূপান্তর অনেক বেশি সম্ভাবনাময়। তিনি জানান, শ্যাওলাকে অতি চমত্কার অণুজীব কোষের কারখানা হিসেবে উন্নয়ন করা যেতে পারে, যা সৌরশক্তি উত্পাদন এবং ব্যবহার উপযোগী বায়ুমণ্ডলীয় কার্বন ডাই-অক্সাইডে রূপান্তর করা যেতে পারে। এভাবে একটি জ্বালানি চক্র তৈরি করা যেতে পারে।

ড. হকের এই প্রকল্প ইউএনও, বিএইচও প্রযুক্তি এবং লুসিয়ানা এমার্জিং টেকনোলজি সেন্টারের যৌথ উদ্যোগে সম্পন্ন হয়। এখন তাঁর পরীক্ষাগারে শ্যাওলা থেকে জৈব জ্বালানি উত্পাদনের জন্য জিনের পর্যাবৃত্তি বিশ্লেষণে অত্যাধুনিক অ্যালগরিদম উদ্ভাবন করা হবে। ড. তামাজিদুল হক যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন ও বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ বাজারজাতকরণে প্রধান গবেষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এ জন্য তিনি নাসাকে একটি স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র উদ্ভাবনে সহযোগিতা করবেন। এ কাজে তিনি সহযোগী গবেষক হিসেবে পাচ্ছেন ইউনিভার্সিটি অব অরলিন্সের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক শেনগ্রু তু-কে।

ড. মো. তামজিদুল হক মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং উপজেলার মরহুম ডা. (ক্যাপ্টেন) শামছুল হকের ছেলে।   সূত্র : বাসস।


মন্তব্য