kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শ্রমসচিব বললেন

শ্রমিক কল্যাণে ব্যয় মাত্র ১.৭৬ শতাংশ!

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বিদেশিদের দেওয়া শর্ত মোতাবেক ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের জন্য ফান্ড গঠন করেছে সরকার। তবে চলতি বছরের ৯ মাসে ১৭০ কোটি টাকার মধ্যে মাত্র ১.৭৬ শতাংশ অর্থ ব্যয় করা সম্ভব হয়েছে।

এখনো ৯৮.২৪ শতাংশ অর্থ ফান্ডে অলস জমা হয়ে আছে বলে জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব মিকাইল শিপার। তিনি বলেন, ‘বিধি অনুযায়ী কোনো নারী নির্মাণ শ্রমিক দুর্ঘটনায় মারা গেলে দুই লাখ টাকা, চিকিৎসার জন্য এক লাখ টাকা এবং গর্ভকালীন অবস্থায় অসুস্থ হলে ২৫ হাজার টাকা দেওয়ার কথা রয়েছে। তবে শ্রমিকরা এ বিষয়টি জানেন না। এ কারণে ফান্ডে পর্যাপ্ত অর্থ জমা থাকা সত্ত্বেও এর সঠিক ব্যবহার করা যাচ্ছে না। ’

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে সিবিসিবি সেন্টারে আয়োজিত নারী শ্রমিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গতকাল শনিবার মিকাইল শিপার এসব তথ্য জানান। মোহাম্মদপুর এলাকায় বসবাসরত দুই শতাধিক কর্মজীবী নারীকে নিয়ে যৌথভাবে সম্মেলনের আয়োজন করে ‘আমরাই পারি’, পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট এবং জাতীয় নারী শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র। ‘সখি’ প্রকল্পের কার্যক্রমের অংশ হিসেবে এই আয়োজনে সহযোগিতা করে নেদারল্যান্ডস দূতাবাস।

সম্মেলনে আরো বক্তব্য দেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, অক্সফাম ইন্টারন্যাশনালের প্রতিনিধি এম বি আখতার, জাতীয় নারী শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক শাহিদা পারভীন শিখা, আমরাই পারি জোটের জাতীয় সমন্বয়কারী জিনাত আরা হকসহ নারী সংগঠনের নেতারা। এতে আনুষ্ঠানিকভাবে মোহাম্মদপুরে ছয়টি বস্তির শ্রমিকরা জাতীয় নারী শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়। পাশাপাশি তাদের নিয়ে ১৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটিও গঠন করা হয়।

মিকাইল শিপার বলেন, ‘নারী শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ও বেতন পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা সরকার নিচ্ছে। পাশাপাশি গৃহকর্মীদের জন্য নীতিমালা তৈরি হয়েছে। এসব নীতিমালার যথার্থ প্রচারে বেসরকারি সংস্থাকে উদ্যোগ নিতে হবে। ’


মন্তব্য