kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গাছে বেঁধে ইউপি সদস্যের স্বামীকে পেটাল সাবেক চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ফরিদপুরের নগরকান্দার পুরাপাড়া ইউনিয়নের এক নারী সদস্যের স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে পেটানো হয়েছে বলে সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার দফা কালীমন্দির বটতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত স্বামী বাবলু মোল্লাকে (৩৮) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন ইউপি সদস্য রেহানা বেগম। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সাবেক চেয়ারম্যান মান্নান ফকির।

পুরাপাড়া ইউনিয়নের এক নারী সদস্য রেহেনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ‘সরকার সম্প্রতি পুরাপাড়া ইউনিয়নে রেশন বরাদ্দ দিয়েছে। ওই রেশন বিতরণের জন্য আমি ১০টি কার্ড পেয়েছি। কার্ডগুলো সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মান্নান ফকির তাঁর পছন্দমতো বিতরণ করতে বলেন। আমি তাতে সাড়া না দিয়ে নিরপেক্ষভাবে কার্ড বিতরণ করি। এতে মান্নান ফকির আমার ওপর ক্ষিপ্ত হন। এরপর শুক্রবার সকালে সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে কামাল হোসেন, ভাতিজা কাইয়ুম ফকিরসহ ৩০ থেকে ৪০ জন আমার স্বামী বাবলুকে দফা কালীমন্দির বটতলা এলাকায় নিয়ে গাছে বেঁধে পিঠিয়ে আহত করে। এ সময় আমার স্বামী বাবলু অজ্ঞান হয়ে গেলে সবাই পালিয়ে যায়। ’

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সাবেক চেয়ারম্যান মান্নান ফকির ও তাঁর সমর্থকরা ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য রেহানা বেগমের স্বামী বাবলু মোল্লাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেছে। পরে স্থানীয় লোকজন অজ্ঞান অবস্থায় বাবলু মোল্লাকে উদ্ধার করে নগরকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করে।

তবে ঘটনার সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ত থাকার কথা অস্বীকার করে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মান্নান ফকির বলেন, ‘আমার লোকজন মারধর করছে এমন খবর পেয়ে আমি বাবলুকে উদ্ধার করে তাঁর পরিবারের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। এ ঘটনার সঙ্গে আমি জড়িত নই। ’

পুরাপাড়া ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান মিয়া বলেন, ‘একজন সাবেক চেয়ারম্যান কিভাবে এমন অমানবিক ও জঘন্য কাজ করতে পারেন? আমি ভাবতেও পারছি না। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও জড়িতদের শাস্তির দাবি জানাই। ’

নগরকান্দা থানার ওসি সৈয়দ আবদুল্লাহ বলেন, ‘বিষয়টি আমি শুনে এক পুলিশ কর্মকর্তাকে ঘটনা তদন্ত  করার নির্দেশ দিয়েছি। বাবলু মোল্লার সাক্ষ্য নিয়েছি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’


মন্তব্য