kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পায়রা সমুদ্রবন্দর

দুর্যোগের ধকল কাটিয়ে পুরোদমে কাজ শুরু

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



দুর্যোগের ধকল কাটিয়ে পুরোদমে কাজ শুরু

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পায়রা সমুদ্রবন্দরে গতকাল থেকে শুরু হয়েছে অপারেশনাল কার্যক্রম। ছবি : কালের কণ্ঠ

দুর্যোগের ধকল কাটিয়ে অবশেষে পায়রা সমুদ্রবন্দরের পণ্য খালাসের কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে মালয়েশিয়া থেকে সিমেন্ট তৈরির কাঁচামাল ক্লিংকার নিয়ে আসা এমভি এফএস বিচ জাহাজটি বন্দরে পণ্য খালাস শুরু করেছে।

পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ক্যাপ্টেন মো. সাইদুর রহমান জানান, ক্লিংকার খালাসের মধ্য দিয়ে পায়রা বন্দরের কার্যক্রম পুরোদমে শুরু হলো।

ক্যাপ্টেন সাইদুর জানান, আগামীকাল (রবিবার) পদ্মা সেতুর জন্য নিয়ে আসা ৫৩ হাজার টন পাথরের মধ্যে ২৩ হাজার টন পাথর নিয়ে এমভি ফরচুন বার্ড পায়রা বন্দরে চলে আসবে। বাকি ৩০ হাজার টন পাথর চট্টগ্রামের বহির্নোঙর কুতুবদিয়ায় খালাস হয়েছে। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর পায়রা বন্দরে আসছে আরো দুটি জাহাজ। এরপর ৯ সেপ্টেম্বর ও ২৮ সেপ্টেম্বর আসছে আরো পণ্যবাহী জাহাজ।

গত ১৪ আগস্ট মালয়েশিয়া থেকে মদিনা গ্রুপের ১২ হাজার ৫০২ মেট্রিক টন ক্লিংকার নিয়ে আসে এমভি এফএস বিচ নামের জাহাজটি। সমুদ্র উত্তাল থাকায় পণ্য খালাস না করে কুতবদিয়ায় চলে যায়। সেখানে গত ২৩ আগস্ট চার হাজার টন ক্লিংকার খালাস করে। গতকাল বিকেলে পায়রা বন্দরের চারিপাড়া মুরিং পয়েন্টে জাহাজটি বাকি আট হাজার ৫০২ টন ক্লিংকার খালাস করে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পায়রা সমুদ্রবন্দর কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ক্যাপ্টেন মো. সাইদুর রহমান, মদিনা গ্রুপের উপদেষ্টা মো. গোলাম হোসেন, উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মাহবুব আলম ও উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. কামরুল হাসান প্রমুখ।

মদিনা গ্রুপের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুল হাসান জানান, ছোট জাহাজ বা লাইটারেজ চান সরকারের মাধ্যমে গতকাল ক্লিংকার খালাস করা হয়েছে। ৮-৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাকি ক্লিংকার খালাস করা যাবে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে পায়রা সমুদ্রবন্দরের কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। এরপরই বন্দরে আসতে শুরু করে পণ্যবাহী জাহাজ। তবে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বন্দরে পণ্য খালাস করা যায়নি।

ক্যাপ্টেন সাইদুর রহমান বলেন, প্রায় এক মাসের বেশি সময় ধরে সমুদ্র উত্তাল থাকায় পায়রা বন্দরে আসা জাহাজ থেকে পণ্য খালাস করা সম্ভব হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে কুতুবদিয়ায় খালাস করা হয়েছে। এখন থেকে নিয়মিত বন্দরে জাহাজ আসবে এবং পণ্য খালাস করা হবে।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার রাবনাবাদ চ্যানেলের তীরে নির্মিত হয়েছে দেশের তৃতীয় সমুদ্রবন্দর পায়রা। বিদ্যমান দুটি বন্দরের পাশাপাশি তৃতীয় একটি বন্দর নির্মাণের মাধ্যমে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে নেওয়া হয়েছে দীর্ঘমেয়াদি ও চতুর্মুখী পরিকল্পনা। ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের মহাপরিকল্পনা নিয়ে ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর সংসদে পাস হয় পায়রা বন্দর অধ্যাদেশ-২০১৩। একই বছর ১৯ নভেম্বর বন্দরের ভিত্তিফলক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


মন্তব্য