kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বেনজীর আহমেদ বললেন

জঙ্গিসংক্রান্ত খবর প্রচারে সতর্ক থাকা উচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ জানিয়েছেন, জঙ্গি সংগঠনগুলোর অবস্থান পর্যবেক্ষণ করছে র‌্যাব। তাদের নেটওয়ার্ক ও সাংগঠনিক শক্তি কতটুকু দুর্বল হয়েছে তার ওপর নজর রাখা হচ্ছে।

তিনি জঙ্গিসংক্রান্ত সংবাদ প্রচারে গণমাধ্যমকর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

র‌্যাবের ডিজি বলেন, ‘১০-১২ জন জঙ্গির নাম নিয়ে মাতামাতি করলে জঙ্গি নির্মূলে কতটা ফলপ্রসূ হবে সেটা বিবেচ্য বিষয়। র‌্যাব ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সাম্প্রতিক অভিযানে জেএমবি-হিযবুত তাহ্রীরসহ জঙ্গি সংগঠনগুলোর কার্যক্রম কেমন চলছে তা পর্যবেক্ষণ করছে। ’

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে র‌্যাবের ডিজি বলেন, ‘জঙ্গি মোকাবিলায় র‌্যাবসহ দেশের অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করে যাচ্ছে। গুলশান হামলার পর র‌্যাব বিভিন্ন অভিযানে নারী জঙ্গিসহ ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। বর্তমানে জঙ্গি সংগঠনগুলোর অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। তাদের নেটওয়ার্ক ভেঙে গেছে কি না, সাংগঠনিকভাবে তারা দুর্বল হয়েছে কি না তা র‌্যাব পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ’

জঙ্গিসংক্রান্ত সংবাদ প্রচারে সতর্ক ধাকার আহ্বান জানিয়ে র‌্যাবের ডিজি বলেন, “আমরা জানি খবরের ফলোআপের বিষয়ে মানুষের আকাঙ্ক্ষা রয়েছে। তবে তথ্য পাওয়ার পরই তা ছেপে দেওয়া সঠিক হবে না। এটা করা হলে দৃষ্টি অন্যদিকে সরে যাবে। যাচাই-বাছাই না করে নিউজ ছাপালে জাতি বিভ্রান্ত হবে। এমন কোনো নিউজ করা যাবে না, যাতে জঙ্গিরা সুযোগ পেয়ে যায়। এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, যাতে আমরা ‘ফোকাসলেস’ হয়ে না যাই। ”

ঈদুল আজহা উপলক্ষে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হচ্ছে জানিয়ে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার পর মানুষের উদ্বেগ বেড়েছে। বিষয়টি সামনে রেখেই নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজানো হচ্ছে। নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে দেব। মানুষ যেন নিরাপদে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পারে। ’

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সড়কে পশুর হাট বসার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এটা দীর্ঘদিনের সমস্যা, এক দিনে সমাধান হবে না। এর আগে যত্রতত্র পশু কোরবানি হতো, ২০১২-১৩ সালের দিকে আমরা ক্যাম্পেইন করেছি সচেতনতা সৃষ্টির জন্য। এখন যত্রতত্র পশু কোরবানি কমে এসেছে। এই সমস্যাও কমে আসবে। এই সমস্যা  সমাধানে জনগণকে সচেতন করা জরুরি। ’


মন্তব্য