kalerkantho


সারা জীবনের সম্পদ সকালের ৭ অভ্যাস

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সারা জীবনের সম্পদ সকালের ৭ অভ্যাস

১. আগের রাতে কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণ : এটা ঠিক সকাল শুরুর কাজ নয়। আগের রাতেই এটা করতে হবে।

সকাল থেকে গোটা দিনের স্বাস্থ্যকর পরিকল্পনার জন্য কাজটি গুরুত্বপূর্ণ। ঘুম থেকে ওঠার সময় নির্ধারণ থেকে শুরু করে দিনের কোন সময় কী করবেন তা যদি আগেই ঠিক করে রাখতে পারেন, তবে ঝামেলাবিহীন সময় কাটবে। এটা এমন কঠিন কোনো কাজ নয়। আগের রাতে ঘুমের আগে মিনিট দশেক সময় খরচ করুন পরিকল্পনা নির্ধারণে।

২. যন্ত্রণাদায়ক সকাল : এটা রাত জাগা মানুষদের জন্য অত্যাবশ্যকীয়। যাঁরা রাত জাগেন তাঁদের সকালে ওঠার কাজটি যন্ত্রণাদায়ক। কিন্তু কয়েক দিনের মধ্যেই অভ্যাসে পরিণত হবে। টাইম ম্যানেজমেন্ট এক্সপার্ট লরা ভ্যান্ডারক্যাম জানান, যেসব এক্সিকিউটিভ সকাল ৭টা থেকে অফিস করেন তাঁদের ৯০ শতাংশ সকাল ৬টার আগেই বিছানা ছাড়েন। ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

কারণ রাতে একটু সকাল সকাল ঘুমাতে গেলে কাজটি সহজ মনে হবে।

৩. ব্যায়ামের মাধ্যমে দিনের শুরু : কাজটি যখনই করুন উপকার মিলবে। তবে দিনের কাজ শুরুর আগে যদি ব্যায়ামের জন্য নির্দিষ্ট সময় হাতে রাখেন, তবে দিনটি আরো ভালো যাবে। শরীরচর্চার মাধ্যমে একটি ঝরঝরে উত্ফুল্ল সকালের শুরু হবে। নিয়মিত ব্যায়াম করলে তা অভ্যাসে পরিণত হবে। এর জন্য বাড়তি সময় যাচ্ছে বলে মনে হবে না।

৪. গুরুত্বপূর্ণ কাজে চোখ বোলানো : সকালের নীরব সময়টা জটিল ও গুরুত্বপূর্ণ কাজে চোখ বোলানোর আদর্শ সময়। সারা দিনের মিটিংয়ের মাধ্যমে যে সমাধান মেলে না, সকালের মিনিট বিশেকের চিন্তা অনায়াসেই ঝামেলা দূর করতে পারে। সকালের স্থিত সময়ে মন ও মস্তিষ্ক সতেজ থাকে। আর তখন যেকোনো কাজই মনোযোগ দিয়ে বিশ্লেষণ করা যায়।

৫. বাড়তি কাজে মন দেওয়া : অনেক ব্যক্তিগত কাজে মন দেওয়ার সময় হয়তো মেলে না। আবার পেশাগত ছোটখাটো কাজেই সময় দিতে পারেন না। সকালের কিছু সময়ের অবসর এ সুযোগ এনে দিতে পারে। মূলকাজ শুরুর আগে বেশ কিছু সময় নিজের অন্যান্য কাজে ব্যয় করতে পারেন।

৬. সম্পর্কের যত্ন : যাঁরা সময়ের অভাবে পরিবার ও প্রিয়জনকে সময় দিতে পারেন না তাঁদের জন্য সকালের সময়টি আদর্শ হতে পারে। পরিবারের সবাইকে যদি সকালে ঘুম থেকে ওঠানোর অভ্যাস করতে পারেন, তবে সবার জন্য ভালো। বাড়তি সময়টা সবাই একসঙ্গে কাটাতে পারেন। একযোগে নাশতার আয়োজন হতে পারে দারুণ উপভোগ্য কাজ।

৭. নীরবতায় শক্তি অর্জন : প্রতিদিনের জীবনটা দারুণ কোলাহলপূর্ণ। এখানে একাকী নীরব সময় মেলা ভার। সকালটাও যদি এমন হয়, তবে মানসিক চাপে পড়তে হবে। কিন্তু সকাল সকাল উঠে যদি কিছু সময় একাকী নীরবে কাটানো যায়, তবে প্রাণশক্তির স্ফুরণ ঘটবে। এই সময় ইয়োগা বা মেডিটেশনে ব্যয় করতে পারলে ব্যাপক উপকার পাবেন। দিনের শুরুটা এর চেয়ে ভালো আর হয় না।

বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার


মন্তব্য