kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


প্রধানমন্ত্রীকে অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে চ্যাম্পিয়ন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে চ্যাম্পিয়ন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গতকাল তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন বাংলাদেশে নরওয়ের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত মেরেটি লুনডেমো। ছবি : পিআইডি

বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের প্রশংসা করে ঢাকায় নবনিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জুলিয়া নিবলেট বাংলাদেশকে অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং নারীর ক্ষমতায়নে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে অভিহিত করেছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে বলেন, ‘আপনি অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং নারীর ক্ষমতায়নে একজন চ্যাম্পিয়ন।

’ জুলিয়া নিবলেট গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে এ কথা বলেন। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের প্রশংসা করে বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়াও বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদারকরণে আগ্রহী। আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে চাই; বিশেষ করে জ্বালানি খাত এবং শিক্ষা খাতে। ’

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাফল্যের কথা উল্লেখ করে হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশের ক্রীড়াক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য শিগগিরই অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের কথা রয়েছে।

সন্ত্রাসকে বৈশ্বিক সমস্যা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বৈঠকে বলেন, তাঁর সরকার এ সমস্যা দূরীকরণে দেশব্যাপী গণসচেতনতা সৃষ্টির পদক্ষেপ নিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, শিক্ষা, ক্রীড়া, সংস্কৃতি প্রভৃতি বিষয়ে আরো বৃহৎ পরিসরে সহযোগিতার ক্ষেত্র তৈরিতে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা জানান। নারীর উন্নয়নে তাঁর সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের তথ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘কোনো দেশই তাদের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারীকে উন্নয়নের মূলধারায় সম্পৃক্ত করা ব্যতীত এগোতে পারে না। ’

কৃষি ও শিপবিল্ডিংয়ে নরওয়ের সহায়তা কামনা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পারস্পরিক স্বার্থে আরো উন্নয়ন এবং বাংলাদেশের কৃষি ও শিপবিল্ডিং সেক্টরের বিকাশে নরওয়ের সহায়তা কামনা করেছেন। এ ছাড়া বাংলাদেশের ফিশারিজ সেক্টরের উন্নয়ন, ব্রিডিং ফিঙ্গারলিং, ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট এবং বাংলাদেশের উপকূল অঞ্চলে মেরিন মত্স্য প্রকল্পে যৌথ উদ্যোগে প্রকল্প গ্রহণে নরওয়ের সহায়তা চান তিনি। ঢাকায় নরওয়ের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত মেরেটে লুনডেমো গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎকালে তিনি এ আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

বৈঠকে বাংলাদেশের শিপবিল্ডিং ও শিপ রিসাইক্লিংয়ের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা হয়। শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার দেশের দক্ষিণ অঞ্চলে একটি নতুন শিপইয়ার্ড স্থাপন করেছে। নরওয়ে সেখানে তাদের একটি নিজস্ব শিপইয়ার্ড নির্মাণ করতে পারে। তারা চাইলে এর জন্য তাদের জমি দেওয়া হবে।

বৈঠকে নরওয়ের রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশে শিপইয়ার্ড শিল্পের অগ্রগতির প্রশংসা করে বলেন, চট্টগ্রামে তাদের দুটি জাহাজ নির্মাণ করা হয়েছে। আরো চারটি জাহাজ নির্মাণের ব্যাপারে মধ্যস্থতা চলছে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র : বাসস।


মন্তব্য