kalerkantho


ফিটনেস

কাঁধের ব্যথা ও মুক্তির উপায়

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



কাঁধের ব্যথা ও মুক্তির উপায়

সুস্থ থাকার জন্য শরীরের প্রতিটি অঙ্গেরই সুস্থতা প্রয়োজন। যেকোনো একটি অঙ্গের ব্যথায় দেখা যায় সব আনন্দই মাটি হয়ে যাচ্ছে।

অনেকেই প্রায় কাঁধের ব্যথায় ভোগেন। বিশেষ করে পুরুষদের মধ্যে এ রোগটি বেশি দেখা যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে এর কারণ ‘মিরর মাসল সিনড্রোম’। এতে যেসব মাংসপেশি সামনে থেকে দেখা যায় সেগুলোরই বেশি ব্যবহার হয়। একই সঙ্গে পেছনের অনেক মাংসপেশির ব্যবহার কমে যায়। এতে মাংসপেশির ভারসাম্য নষ্ট হয়ে কাঁধে ব্যথা শুরু হয়।

জিমে আবার শরীরের ওপরের অংশের মাংসপেশির চর্চার জন্য ‘পুশ’ জাতীয় ব্যায়াম করা হয়। কিন্তু তা কাঁধের ব্যথা কমানোর জন্য যথেষ্ট নয়। তাই শুধু পুশ জাতীয় ব্যায়াম যথেষ্ট নয়, এ জন্য পুল জাতীয় ব্যায়ামও দরকার।

তবে সবার আগে নিশ্চিত হতে হবে কাঁধের ভারসাম্য নষ্ট হয়েছে কি না। খুব সহজেই এ পরীক্ষা নিজে নিজেই করা যায়। এর জন্য দরকার দুটি পেন্সিল বা কলম। একে আমরা পেন্সিল টেস্টও বলতে পারি। দুই হাতের মুঠোয় দুটি পেন্সিল বা কলম নিয়ে হাত দুটি সোজা নিচের দিকে ঝুলিয়ে দিতে হবে। হয়ে গেল টেস্ট। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন মুঠো খুব শক্ত না হয়। এবার হাতের দিকে খেয়াল করুন। দুই হাতের পেন্সিল কি সোজা বাইরের দিকে মুখ করে আছে? যদি থাকে তাহলেই আপনার কাঁধ ঠিক আছে। মাংসপেশির ভারসাম্য ঠিক আছে। যদি দেখা যায় দুই হাতের পেন্সিল ভেতরের দিকে কিছুটা বেঁকে আছে তাহলে কাঁধের ভারসাম্য কিছুটা নষ্ট হয়েছে। পেন্সিল যদি একে অপরের দিকে মুখ করে থাকে তাহলে যথেষ্ট চিন্তার আছে। কেননা আপনার কাঁধের ভারসাম্যে যথেষ্ট সমস্যা আছে। এ ক্ষেত্রে আপনার কাঁধের ব্যথা শুরু হতে পারে। যদি আপনি ওজন তোলা বা কাঁধের মাংসপেশি বেশি ব্যবহূত হয় এমন কাজ করেন তাহলে এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

(আগামী সংখ্যায় শেষ)


মন্তব্য