kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


নির্বাচনী সহিংসতায় আ. লীগ ও যুবলীগের দুজন নিহত, আহত ১২২

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংসতায় বগুড়া ও চট্টগ্রামে দুজন নিহত হয়েছেন। এর মধ্য বগুড়ায় আহত এক আওয়ামী লীগ নেতা এবং চট্টগ্রামে এক যুবলীগ নেতার মৃত্যু হয়। এ ছাড়া মঙ্গলবার প্রথম ধাপে ভোটগ্রহণের পর মঙ্গলবার রাত ও গতকাল বুধবার বিভিন্ন জেলায় সহিংস বিক্ষোভ, বাড়িঘরে হামলা, সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনায় ১২২ জন আহত হয়েছে। বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীদের লোকজনের মধ্যে এসব সংঘর্ষ হয়।

বরিশালে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত হয় ২৬ জন। এর মধ্যে গৌরনদী উপজেলার বার্থী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পরাজিত সদস্য পদপ্রার্থী আবদুস ছোবহান হাওলাদারের পাঁচ শতাধিক কর্মী-সমর্থক ভোট কারচুরি অভিযোগে মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এ সময় পুলিশের লাঠিচার্জে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এইচ এম জয়নাল আবেদীনসহ ২০ জন আহত হয়। এ ছাড়া গতকাল সকালে উপজেলার শাওড়া গ্রামে দুজন এবং হাজীপাড়া গ্রামে চারজনকে পিটিয়ে জখম করা হয়।

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের কুমিরমারা গ্রামে পরাজিত সদস্য পদপ্রার্থী মো. মহিবুল্লাহ ও কবির গাজী সমর্থকদের মধ্যে সশস্ত্র হামলা-পাল্টাহামলা হয়। প্রায় একই সময় চাকামইয়া ইনিয়নের আনিপাড়া গ্রামে বিজয়ী সদস্য পদপ্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম ভোটারদের বাড়ি দেখা করতে গেলে তাঁর সমর্থকদের ওপর হামলা চালানো হয়। দুটি হামলায় অন্তত ৫০ জন আহত হয়।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মাইজখাপন ইউনিয়নে ভোটে হেরে চারটি বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর করেছে পরাজিত সদস্য পদপ্রার্থী আবদুর রাজ্জাকের সমর্থকরা। এ সময় রমজান ও আক্কাস মিয়ার বাড়িতে চারটি ঘর ভাঙচুর করা হয়। মঙ্গলবার রাতে কালাইহাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মাদারীপুরের শিবচরের কাদিরপুর ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে বিজয়ী সদস্য আব্বাস মুন্সী ও পরাজিত সদস্য পদপ্রার্থী আবদুল জব্বার হাওলাদারের সমর্থকদের মধ্যে গতকাল দুপুরে সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়।

যশোরের মণিরামপুরে নির্বাচনোত্তর সহিংসতায় পাঁচজন আহত হয়। এর মধ্যে গতকাল সকালে শ্যামকুড় ইউনিয়নের চিনাটোলায় সদস্য পদপ্রার্থী আব্দুল হালিম ও রমেশ দাসের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে দুজন এবং পাড়দিয়া-ঘুঘুরাইল ওয়ার্ডে সকালে সদস্য পদপ্রার্থী ইউনুচ আলী ও মুজিবর রহমানের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে তিনজন আহত হয়।

সাতক্ষীরা তালা উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নে নির্বাচনোত্তর সহিংসতায় ২০ জন আহত হয়। গতকাল সকালে ইউনিয়নের মাদরা এলাকায় সর্বজনীন কালীপূজা মন্দিরের সামনে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাগুরা ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের গণেশ চন্দ্র দেবনাথ ও পরাজিত প্রার্থী ওয়ার্কার্স পার্টির হিরণ্ময় মণ্ডলের সমর্থকদের মধ্যে প্রথমে সংঘর্ষে পাঁচজন আহত হয়। পরে মাদরা বাজারে বিজয়ী চেয়ারম্যানের সমর্থক উপজেলা চেয়ারম্যান সনৎ কুমারতে ঘেরাও করা হলে বিজিবির লাঠিচার্জে আরো ১৫ জন আহত হয়।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের লতব্দী ইউনিয়ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে সমর্থন না করাকে কেন্দ্র করে সালমা বেগম (৩৫) নামের এক গৃহবধূকে আগুনে ঝলসে দেওয়া হয়েছে। তাঁর দেবর মিজানুর রহমান এ ঘটনা ঘটায় বলে সালমার অভিযোগ।

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় নির্বাচন চলাকালে পুলিশ কর্মকর্তার ওপর হামলার ঘটনায় নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানসহ তিন শতাধিক লোককে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সুসেন সেনসহ ১০ জনকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার বোহাইল ইউনিয়নে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত আওয়ামী লীগ নেতা জবেদ আলী (৪০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। গতকাল বিকেলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও চরশঙ্করপুর গ্রামের বাসিন্দা। মঙ্গলবার দক্ষিণ শঙ্করপুর ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষে তিনি আহত হয়েছিলেন।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার বারৈয়ারঢালা ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য রেয়াজ উদ্দিন নয়ন (২৭) দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে মহালঙ্গা গ্রামের মোল্লা মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী রায়হান উদ্দিনের পক্ষে প্রচারণা শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে হামলার শিকার হন তিনি। তাঁকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। [প্রতিবেদন তৈরিতে স্থানীয় নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা সহায়তা করেছেন। ]


মন্তব্য