kalerkantho


রিজার্ভের অর্থ চুরি প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের ফরাসউদ্দিন

তদন্ত কমিটিকে কাজ করতে দিন সহযোগিতা করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



রিজার্ভের অর্থ চুরির ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটির সদস্যরা গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকে গিয়ে নতুন গভর্নর ফজলে কবিরসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে চুরির ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের এ পর্যন্ত নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের বিষয়ে জানতে চান তাঁরা।

পাশাপাশি কোনো তথ্য থাকলে তা দিয়ে সহযোগিতার জন্য বলেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢোকার সময় তদন্ত কমিটির প্রধান ও সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘ঘটনা তদন্তে ৩০ দিন সময় দেওয়া হয়েছে। কমিটিকে কাজটা করতে দিন, তাতে ভালো হবে। আপনারাও (সাংবাদিক) সহযোগিতা করুন। ’ এর বাইরে আর কিছু বলতে তিনি রাজি হননি। এর আগে গত রবিবার অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষেও তিনি কিছু বলতে রাজি হননি।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তদন্ত কমিটির গতকাল থেকেই কাজ শুরুর কথা ছিল। সে লক্ষ্যে ড. ফরাসউদ্দিন গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকে যান। জানা গেছে, তদন্ত কমিটির প্রধানের জন্য ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে একটি কক্ষ প্রস্তুত করা হয়েছে।

তাঁকে সহযোগিতা করবেন একজন সচিব ও একজন ডাটা এন্ট্রি অপারেটর।

রিজার্ভ থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরির ঘটনায় ফরাসউদ্দিনকে প্রধান করে গত ১৫ মার্চ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে সরকার। কমিটিকে ৩০ দিনের মধ্যে অন্তর্বর্তীকালীন এবং ৭৫ দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন বুয়েটের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. কায়কোবাদ এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব গকুল চাঁদ দাস।

তদন্ত কমিটিকে সাতটি বিষয়ে কাজ করতে বলা হয়েছে। সেগুলো হলো—বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে অবৈধভাবে পেমেন্ট ইন্সট্রাকশন কিভাবে ও কার বরাবর গেল, অবৈধ পরিশোধ ঠেকানোর লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গৃহীত পদক্ষেপের পর্যাপ্ততা, বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের কাছে গোপন রাখার যৌক্তিকতা, বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সংশ্লিষ্টতা বা দায়িত্বে অবহেলা ছিল কি না, চুরি যাওয়া অর্থ উদ্ধারের সম্ভাবনা এবং গৃহীত কর্যক্রমের পর্যাপ্ততা, একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে গৃহীত ব্যবস্থা এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে সুপারিশ।


মন্তব্য