kalerkantho


এটিএম কার্ড জালিয়াতি

পিওতরসহ ৬ জনের অ্যাকাউন্টের তথ্য সংগ্রহে বিএফআইইউ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ব্যাংকের এটিএম কার্ড জালিয়াতির ঘটনায় গ্রেপ্তার বিদেশি নাগরিক পিওতর শজেপ্যান মাজুরেকসহ ছয়জনের অ্যাকাউন্টের (ব্যাংক হিসাব) তথ্য সংগ্রহে নেমেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

পিওতর বাদে বাকিরা হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রেফাজ আহমেদ, বাড্ডার রেজাউল করীম, মাকসুদুল আলম (মোরশেদ আলম মাকসুদ), একটি মানি এক্সচেঞ্জের কর্মী সাইফুজ্জামান ও একটি তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্মী হুমায়ুন কবীর। তাঁদের মধ্যে রেফাজ থাকেন গাজীপুরের টঙ্গীতে, মাকসুদুলের বাড়ি ময়মনসিংহের ভালুকায়। আর সাইফুজ্জামান একটি বেসরকারি ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা।

সম্প্রতি এ ছয়জনের স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা, পাসপোর্ট নম্বরসহ অন্যান্য তথ্য দিয়ে দেশের সব ব্যাংকে চিঠি পাঠিয়েছে বিএফআইইউ। ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তাঁদের ও তাঁদের স্বার্থসংশ্লিস্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে কোনো ব্যাংক হিসাব থাকলে অথবা আগে পরিচালিত হয়ে থাকলে তার তথ্য পাঠাতে বলেছে বিএফআইইউ।

সম্প্রতি ঢাকার গুলশান, বনানী ও মিরপুরের কালশীতে কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংকের এটিএম বুথে ‘স্কিমিং ডিভাইস’ বসিয়ে গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য চুরির পর কার্ড ক্লোন করে টাকা তুলে নেওয়ার ঘটনায় ব্যাপক তোলপাড় হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ব্যাংকগুলোর ৩৬টি এটিএম কার্ড ক্লোন করে ২০ লাখ ৬০ হাজার টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে। জালিয়াতচক্র এক হাজার ২০০ কার্ডের তথ্য চুরি করেছিল।

এটিএম কার্ড জালিয়াতির ঘটনায় ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক ও সিটি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মামলা করলে তদন্তে নামে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ইউসিবিএলের করা মামলার এজাহারের সঙ্গে এটিএম বুথের সিসি ক্যামেরায় পাওয়া এক বিদেশির ছবিও জুড়ে দেওয়া হয়। এর ভিত্তিতে ২২ ফেব্রুয়ারি পিওতর ও সিটি ব্যাংকের চার কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।


মন্তব্য