kalerkantho


১০ পৌরসভায় ভোট আজ

বিশেষ প্রতিনিধি   

২০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আজ দেশের ১০টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ১০টিতেই চেয়ারম্যান পদে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে বিএনপির প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

এর মধ্যে ছয়টি পৌরসভায় শক্ত অবস্থানে রয়েছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা। পাঁচটি পৌরসভায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের সাতজন বিদ্রোহী প্রার্থী। দুটিতে রয়েছেন বিএনপির দুই বিদ্রোহী প্রার্থী। এ ছাড়া জাতীয় পার্টি, ইসলামী আন্দোলন ও ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থীরাও প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। স্থানীয়দের ধারণা, এ নির্বাচনে পাঁচটিতে ত্রিমুখী ও পাঁচটিতে দ্বিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে।

দ্বিতীয় ধাপের এই পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪২ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১০৭ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৩৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এ ধাপে রংপুরের হারাগাছ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, ঝালকাঠি সদর, নোয়াখালীর কবিরহাট, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট, ফরিদপুরের ভাঙ্গা, কক্সবাজারের চকরিয়া ও মহেশখালী, ফেনীর সোনাগাজী ও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে নির্বাচন হচ্ছে।

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের নারীদের জন্য দুটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং ফেনীর সোনাগাজীর একটি সংরক্ষিত ও একটি সাধারণ কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন। বাকি ২৮টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর, ৯২টি সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং ১০টি মেয়র পদে আজ ভোটগ্রহণ করা হবে।

এ নির্বাচনে মোট ভোটার তিন লাখ ৫৬ হাজার ৭০১ জন। ১৭৪টি কেন্দ্রের এক হাজার চারটি কক্ষে ভোটগ্রহণ করা হবে।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, নির্বাচনী এলাকায় নির্বাহী ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, বিজিবি, পুলিশ, র্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বাড়তি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। তবে কয়েকটি পৌরসভায় সুষ্ঠু ভোটগ্রহণ নিয়ে নিজেদের শঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিএনপির প্রার্থীরা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ঝালকাঠি সদর, ফরিদপুরের ভাঙ্গা, ফেনীর সোনাগাজী ও কক্সবাজারের মহেশখালী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন। কুমিল্লার নাঙ্গলকোট পৌরসভায় বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। এ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে ত্রিমুখী লড়াই হতে পারে। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌরসভায় মূল লড়াই হতে পারে  আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে। এ পৌরসভায় বিএনপির একজন বিদ্রোহী রয়েছেন। ঝালকাঠি সদর ও সোনাগাজীতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের ত্রিমুখী এবং ভাঙ্গা ও মহেশখালীতে আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগের  বিদ্রোহীদের মধ্যে দ্বিমুখী লড়াই হতে পারে। এ দুটি পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থীরা অনেকটাই নিশ্চুপ। ।


মন্তব্য