kalerkantho

শুক্রবার । ২০ জানুয়ারি ২০১৭ । ৭ মাঘ ১৪২৩। ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮।


‘যুদ্ধশিশুরা হানাদারদের নিষ্ঠুরতার জীবন্ত প্রকাশ’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



একাত্তরের যুদ্ধশিশুরা পাকিস্তানি হানাদারদের নিষ্ঠুরতার জীবন্ত প্রকাশ। গতকাল সোমবার দুপুরে মুস্তাফা চৌধুরী রচিত ‘UNCONDITIONAL LOVE : STORY OF ADOPTION OF 1971 WAR BABIES’ শীর্ষক গ্রন্থের আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা এই অভিমত প্রকাশ করেন।

বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে এই গ্রন্থের ওপর আলোচনা হয়। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন গবেষক, সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত। আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম এবং ড. জালাল আহমেদ। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।  

বক্তারা বলেন, মুস্তাফা চৌধুরী তাঁর গ্রন্থের যে নাম দিয়েছেন তা বাংলায় হলো ‘৭১-এর যুদ্ধশিশু-অবিদিত ইতিহাস’। মুস্তফা চৌধুরীর বইটি পড়তে পড়তে চোখ ভেসে যায় জলে। অধিকৃত বাংলাদেশে পাকিস্তানি সেনারা নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল। নারীদের ধর্ষণ করেছে। মানব ইতিহাসের নিদারুণ ভয়াবহ সংকটের সন্তানরা তাদের অস্তিত্বের বিপন্নতা নিয়ে দিনাতিপাত করেছে; এখন সময় এসেছে তাদের গর্বিত আত্মপ্রকাশের কারণ বের করার। যুদ্ধশিশুরা বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধেরই সন্তান। বিপুলসংখ্যক যুদ্ধশিশুই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্মমতা ও নিষ্ঠুরতার জীবন্ত সাক্ষ্য বহন করে। এর মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধকালে সংঘটিত মানব-অবমাননার বিচারের প্রসঙ্গটি আরো জোরদার হয়ে উঠে আসে।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান বলেন, এই বইয়ের আলোচনা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার মহান মাসে বাংলা একাডেমি মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে লাঞ্ছিত মা-বোন এবং তাদের যুদ্ধশিশুদের ন্যায়বিচার ও সম্মানপ্রাপ্তির বিষয়টির প্রতি সবার মনোযোগ আকর্ষণ করতে চায়।


মন্তব্য