kalerkantho

26th march banner

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন নিয়ে হাইকোর্টের রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোবাইল সিম নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। স্বরাষ্ট্র ও আইনসচিব, বিটিআরসির চেয়ারম্যান, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, ইসির জাতীয় পরিচয়পত্র শাখার মহাপরিচালক, গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, রবি, এয়ারটেল, সিটিসেল ও টেলিটক কর্তৃপক্ষসহ ১৩ বিবাদীকে এক সপ্তাহের মধ্যে এর জবাব দিতে বলা হয়েছে। আগামী ২৪ মার্চ এ রুলের ওপর শুনানি হবে।

বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি এ কে এম সাহিদুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল সোমবার এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট এ ওয়াই মশিউজ্জামান ও ব্যারিস্টার মো. মোক্তাদির রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দ কুমার রায় ও জেসমিন সুলতানা। গত ৯ মার্চ হাইকোর্টে এ রিট আবেদন করেন আইনজীবী এস এম এনামুল হক।

গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর বিটিআরসি বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন করতে ছয়টি মোবাইল ফোন কম্পানিকে নির্দেশ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে। তাতে বলা হয়, সব সিম নিবন্ধন, অ্যাকটিভেশন ও ভেরিফিকেশনের জন্য আঙুলের ছাপ দিতে হবে। আগামী এপ্রিলের মধ্যে এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার নির্দেশনা রয়েছে।

এ অবস্থায় আঙুলের ছাপ নিয়ে সিম নিবন্ধন করার প্রক্রিয়া চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়। তাতে বলা হয়, সংবিধানের ৪৩ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, জনশৃঙ্খলা, জনসাধারণের নৈতিকতা বা জনস্বাস্থ্যের স্বার্থে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসংগত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে প্রত্যেক নাগরিকের—(ক) প্রবেশ, তল্লাশি ও আটক হইতে স্বীয় গৃহে নিরাপত্তালাভের অধিকার থাকিবে; এবং (খ) চিঠিপত্রের ও যোগাযোগের অন্যান্য উপায়ের গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার থাকিবে। ’

ব্যারিস্টার মোক্তাদির রহমান সাংবাদিকদের বলেন, টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন-২০০১-এর ৩১ ধারার মধ্যে এটা পড়ে না। এ ছাড়া বিষয়টি সংবিধানসম্মত নয়।


মন্তব্য