নন্দন মঞ্চে রবীন্দ্রসংগীত উৎসব-335001 | খবর | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৪ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৬ জিলহজ ১৪৩৭


নন্দন মঞ্চে রবীন্দ্রসংগীত উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



নন্দন মঞ্চে রবীন্দ্রসংগীত উৎসব

শিল্পকলা একাডেমিতে বাংলাদেশ রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংসদ ও ইন্দিরা গান্ধী কালচারাল সেন্টার আয়োজিত রবীন্দ্রসংগীত উৎসবে সম্মিলিত পরিবেশনা। ছবি : কালের কণ্ঠ

শিল্পকলা একাডেমিতে চলছে দুই দিনব্যাপী রবীন্দ্রসংগীত উৎসব। বাংলাদেশ রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংসদ ও ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব কালচারাল রিলেশনসের যৌথ উদ্যোগে একাডেমির নন্দন মঞ্চে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় শুরু হয় রবীন্দ্রসংগীত উৎসব ‘শুভ কর্মপথে ধর নির্ভয় গান’। গতকাল উৎসবের প্রথম দিনে বাংলাদেশ ও ভারতের শিল্পীরা শোনান রবীন্দ্রনাথের বিভিন্ন পর্যায়ের গান।

শিল্পীদের সম্মেলক কণ্ঠে জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় এ আয়োজন। শিল্পীরা এরপর গেয়ে শোনান ‘আকাশ ভরা সূর্য তারা’ ও ‘প্রাণ ভরিয়ে তৃষা হরিয়ে’ গান দুটি। এরপর ছিল সংক্ষিপ্ত আলোচনা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কথাসাহিত্যিক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সংসদের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ড. ফরহাদ হোসেনের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন আয়োজনের পৃষ্ঠপোষক স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেডের বিপণন ব্যবস্থাপক জেসমিন জামান ও সংসদের সাধারণ সম্পাদক ফাহিম হোসেন চৌধুরী।

গতকাল সন্ধ্যায় সংগীত পরিবেশন করেন ভারতের শ্রীকান্ত আচার্য্য, প্রবুদ্ধ রাহা ও মধুরিমা দত্ত চৌধুরী। বাংলাদেশের শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন মিতা হক, দোদুল আহমেদ, ড. ফরহাত হোসেন, ফাহিম হোসেন চৌধুরী, মুজিবুল কাইউম, বদরুন্নেসা ডালিয়া, শরফুল আলম, সুপর্ণা হাসান মিতু, আদৃতা আনোয়ার প্রমুখ। আবৃত্তি করেন লায়লা আফরোজ। আজ শনিবার আয়োজনের শেষ দিন।

ওয়াহিদুল হক স্মরণ : ওয়াহিদুল হক প্রতিষ্ঠিত কণ্ঠশীলনের আয়োজনে গতকাল শুক্রবার থেকে সুফিয়া কামাল কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে শুরু হয়েছে দুই দিনের ওয়াহিদুল হক স্মারণিক মিলনোৎসব। গণগ্রন্থাগারের উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে ঢাকঢোল আর বর্ণিল বেলুন উড়িয়ে ‘তোমাতে রয়েছে সকল ধর্ম, সকল যুগাবতার’ প্রতিপাদ্যে এর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, গণসংগীত সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ফকির আলমগীর, পথনাটক পরিষদের সভাপতি মান্নান হীরা প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন কণ্ঠশীলনের সভাপতি আহমাদুল হাসান হাসনু। এর আগে শুরুতে জাতীয় সংগীত ও উদ্বোধনী সংগীত পরিবেশন করে সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর বের হয় শোভাযাত্রা। এরপর ওয়াহিদুল হকের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে সমবেত সংগীত করবে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। ওয়াহিদুল হকের জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা করেন নাট্যজন আতাউর রহমান। সন্ধ্যায় ‘চাঁদ বণিকের পালা’ পরিবেশন করে কণ্ঠশীলনের বাকিশল্পীরা। সন্ধ্যায় দলীয় আবৃত্তিতে অংশ নেয় স্বরশ্রুতি ও স্বরকল্পন। একক আবৃত্তি করবেন অধ্যাপক কাজী মদিনা, কাজী আরিফ, হাসান আরিফ, লায়লা আফরোজ, বেলায়েত হোসেন, এনামুল হক বাবু, মাহিদুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, ইকবাল খোরশেদ, নায়লা তারান্নুম চৌধুরী কাকলি, রেজীনা ওয়ালী লীনা, ফয়জুল আলম পাপ্্পু প্রমুখ। আজ শনিবার দিনব্যাপী নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ উৎসব।

উদীচীর গণসংগীত প্রতিযোগিতার ঢাকা জেলা পর্ব সম্পন্ন : আগামী ১ ও ২ এপ্রিল উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী আয়োজন করতে যাচ্ছে ‘সপ্তম সত্যেন সেন গণসংগীত উৎসব ও জাতীয় গণসংগীত প্রতিযোগিতা’। এবারের স্লোগান—‘মানুষ জাগাও, স্বদেশ জাগাও, বিশ্ব জাগাও সংগীতে’। গতকাল শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় এ প্রতিযোগিতার ঢাকা জেলা পর্ব। ঢাকা জেলা পর্বে ‘ক’ বিভাগে প্রথম সিদরাতুল মুনতাহা ঐশী ও দ্বিতীয় হয়েছে নূর জাকিয়া প্রাপ্তি; ‘খ’ বিভাগে প্রথম নূসরাত জাহান ঊষা ও দ্বিতীয় হয়েছে ইয়ানূর আক্তার; ‘গ’ বিভাগে প্রথম শ্রাবণী গুহ রায় ও দ্বিতীয় হয়েছে আল আমিন শরীফ এবং দলীয় অর্থাৎ ‘ঘ’ বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করেছে উদীচী মিরপুর শাখা। আগামী ১৮ মার্চ একই মঞ্চে বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে জেলা পর্যায়ের এ বিজয়ীরা।

আলতাফ আলী হাসু পদক পেলেন নূহ-উল-আলম লেনিন : ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠীর সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলতাফ আলী হাসুর নামাঙ্কিত স্মৃতি পদক পেয়েছেন কবি ও রাজনীতিবিদ ড. নূহ-উল-আলম লেনিন। গতকাল মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তাঁর হাতে এ পদক তুলে দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, আইনজীবী সৈয়দ রেজাউর রহমান, কবি-সাংবাদিক সোহরাব হাসান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি ফকির আলমগীর।

মন্তব্য