kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গ্রিন সামিট উদ্বোধনকালে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

নির্ধারিত স্থানে শিল্প কারখানা করলে দ্রুত গ্যাস-বিদ্যুৎ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



শিল্প-কারখানা পরিকল্পিতভাবে ইপিজেড, ইকোনমিক জোন বা বিসিক নির্ধারিত স্থানে স্থাপন করলে দ্রুত গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, যেসব শিল্পপ্রতিষ্ঠান আগে গ্যাস ব্যবহার করে জেনারেটর চালাত তাদের এখন গ্রিডের বিদ্যুৎ ব্যবহার করা উচিত।

আগামী দুই বছরের মধ্যে ফ্লটিং স্টোরেজ অ্যান্ড রিগ্যাসিফিকেশন ইউনিট (এফএসআরইউ) স্থাপন করা হবে, তখন গ্যাসের সমস্যা অনেকটাই কেটে যাবে। গতকাল শুক্রবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সপ্তম আন্তর্জাতিক বাংলাদেশ ইনোভেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এক্সপো ও গ্রিন সামিট-২০১৬ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘আমাদের পরিকল্পনাগুলো বাস্তবতার নিরিখে ভবিষ্যতের বাংলাদেশকে সামনে রেখে নেওয়া উচিত, যাতে আগামীর চাহিদা সহজেই পূরণ করা যায়। ’ বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন গ্রিন প্রকল্পে যে সহায়তা করে তা বৃদ্ধি এবং ইনোভেশন প্রকল্পে কম সুদে অর্থায়নের গুরুত্ব উল্লেখ করেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী পরিবেশবান্ধব ও জ্বালানি সাশ্রয়ী নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের গুরুত্ব উল্লেখ করে আরো বলেন, ‘জনগণকে এর সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে হবে এবং এটা নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকেই (স্রেডা) দায়িত্ব নিতে হবে। ’ তিনি এসব এক্সপো ও গ্রিন সামিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘এতে ভবিষ্যৎ প্রজম্ম আগামীতে তাদের করণীয় সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকবে। ’

সপ্তম আন্তর্জাতিক বাংলাদেশ ইনোভেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এক্সপো ও গ্রিন সামিটের প্রদর্শনীতে ১৩টি দেশের ১৩০টি প্রতিষ্ঠান ২২০টি স্টলে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইন্ডাস্ট্রিয়াল বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশ, এয়ার কন্ডিশনিং সিস্টেম, পরিবেশবান্ধব ভবন নির্মাণ যন্ত্রাংশ, অফিস ইন্টেরিয়র, হিট কন্ট্রোল প্রযুক্তি ও কম্পিউটার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত স্বয়ংক্রিয় অগ্নিনির্বাপন এবং বিল্ডিং অটোমেশনসহ বিভিন্ন শিল্পের উদ্ভাবিত আধুনিক মেশিনারিজ ও সেবা প্রদর্শন করছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. আনোয়ারুল ইসলাম সিকদার, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ নওশাদ আলী চৌধুরী, বাংলাদেশ ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক এস এম ফরমানুল ইসলাম, ইএনথ্রি সাসটেইনেবল সলিউশন লিমিটেডের পরিচালক সিথারাম রাম ও ‘এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার’ ম্যাগাজিনের সম্পাদক মোল্লা আমজাদ হোসেন বক্তব্য দেন।


মন্তব্য