kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আচরণবিধি লঙ্ঘন

এমপি রিমনের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা ঠিক করতে পারেনি ইসি

বিশেষ প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



এমপি রিমনের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা ঠিক করতে পারেনি ইসি

গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইউজিসি মিলনায়তনে ইউজিসি থেকে প্রকাশিত বইয়ের লেখকদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সম্মাননা প্রদান করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। ছবি : পিআইডি

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য দুই সংসদ সদস্যের (এমপি) বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্তে কিছুটা পরিবর্তন এনেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য খন্দকার আজিজুল হক আরজুর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আগে তাঁর বক্তব্য জানতে চায় ইসি।

এ জন্য এ সংসদ সদস্যকে প্রাথমিকভাবে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আর  বরগুনা-২ আসনের শওকত হাচানুর রহমান রিমনের বিষয়ে গতকাল বুধবার পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে গতকাল নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক কালের কণ্ঠকে বলেন, সংসদ সদস্য শওকত হাচানুর রহমান রিমনের বিরুদ্ধে সরাসরি আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে। তিনি একটি প্রকল্প উদ্বোধন করে ইউপি নির্বাচনে দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চেয়েছেন বলে অভিযোগ আছে। এ জন্য তাঁকে শোকজ নোটিশ দেওয়ার প্রয়োজন নেই। তিনি যা করেছেন তা শাস্তিযোগ্য। এ ক্ষেত্রে কী ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যায় তা নির্ধারণ হয়নি।

এদিকে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শওকত হাচানুর রহমান রিমন গত ৫ মার্চ পল্লী বিদ্যুতের একটি প্রকল্প উদ্বোধন করার সময় নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে ইউপি নির্বাচনে নিজ দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চান। এই আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনাটি গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে ইসি সচিবালয় তাঁর বিরুদ্ধে মামলার সুপারিশ করে।  

কিন্তু শওকত হাচানুর রহমান রিমন ওই অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেছেন। গতকাল কালের কণ্ঠের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ওই অনুষ্ঠানটি কোন নির্বাচনী জনসভা ছিল না। আমি শুধু সুইচ টিপে প্রকল্প উদ্বোধন করেছি। কোনো কথা বলিনি এবং কারো জন্য ভোট চাইনি। ’

এর আগে পৌরসভা নির্বাচনেও আচরণবিধি লঙ্ঘনের কারণে সংসদ সদস্য রিমনকে শোকজ নোটিশ দিয়েছিল ইসি। জবাবে এমপি রিমনের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে দুঃখ প্রকাশ করা হয় এবং তিনি নিজে সশরীরে কমিশনে গিয়ে এর পুনরাবৃত্তি না ঘটানোর বিষয়ে অঙ্গীকার করেন।


মন্তব্য