হাসপাতালে ভর্তি করা হলো-333820 | খবর | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


তারাও ভুগছে ‘বৃক্ষমানব’ সিনড্রোমে!

হাসপাতালে ভর্তি করা হলো তাজুল-রুহুলকে

রংপুর অফিস   

৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



হাসপাতালে ভর্তি করা হলো তাজুল-রুহুলকে

তাজুল ও তাঁর সন্তান রুহুল

‘বৃক্ষমানব’ সিনড্রোমে ভোগা রংপুরের তাজুল ইসলাম ও তাঁর ছেলে রুহুল আমিনের জন্য অবশেষে উন্নত চিকিৎসার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রংপুর জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসনের লোকজন তাজুলের বাড়িতে গিয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার সকালে দুজনকে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ তাদের উন্নত চিকিৎসা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চিকিৎসকরা। আজ বুধবার তাদের রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার কথা রয়েছে।

‘বৃক্ষমানব’ সিনড্রোমে আক্রান্ত ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবুল বাজনদারকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনার মধ্যেই সম্প্রতি তাজুল (৫০) ও রুহুলের (১০) খোঁজ মেলে। তাদের বাড়ি পীরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর কালসারডাড়া এলাকায়। দুজনের হাতে-পায়ে গাছের মতো শিকড় গজিয়েছে। কাজকর্ম করতে না পারায় বাধ্য হয়ে তারা ভিক্ষাবৃত্তি বেছে নিয়েছে। এ নিয়ে গত সোমবার কালের কণ্ঠে “তারাও ভুগছে ‘বৃক্ষমানব’ সিনড্রোমে!” শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এরপর রংপুরের জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ারসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পরিবারটিকে সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া হয়। জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। উপজেলা সমাজসেবা দপ্তরসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

তাজুল জানান, জন্ম থেকেই তিনি এ রোগে আক্রান্ত। কোনো কাজকর্ম করতে পারেন না। ভিক্ষা করে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে। পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হওয়ায় সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, দুই দিন ধরে বাড়িতে বিভিন্ন লোকজন খোঁজখবর নিতে আসছে। অনেকেই সাহায্য করেছে। রামনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম আমাদের হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন।’

তাজুলের পরিবার জানিয়েছে, একই রোগে আক্রান্ত হয়ে তাজুলের বাবা আফাজ উদ্দিন মুন্সিও মারা গেছেন। তাজুলের ভাই বাছেদ আলীর দুই পা ইতিমধ্যে কেটে ফেলা হয়েছে।

পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক জিয়াউর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, তাজুল ও তাঁর ছেলেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তাদের হাত-পায়ের চুলকানি ও ব্যথার চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। চিকিৎসা ছাড়াও তাদের সব ধরনের সহায়তা করা হবে। উন্নত চিকিৎসার জন্য বুধবার (আজ) রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। 

পীরগঞ্জের ইউএনও এস এম মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘সংবাদমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হওয়ার পর জেলা প্রশাসক মহোদয় দ্রুত তাজুল ইসলামের পরিবারকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়ার নির্দেশ দেন। মঙ্গলবার (গতকাল) তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রয়োজনে উন্নত চিকিৎসার  জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে।’

মন্তব্য