kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ছয় স্থানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাউফলে একজন নিহত

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ছয় স্থানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাউফলে একজন নিহত

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গত সোমবার রাত থেকে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ছয় স্থানে প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এসব ঘটনায় একজন নিহত হয়েছে।

একই সঙ্গে তিন পুলিশ সদস্যসহ ৬৪ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। পাঁচ স্থানে সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ।

গত সোমবার রাতে গণসংযোগ করাকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালীর বাউফলের আদাবাড়িয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এতে ওই ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আশ্রাফ ফকির নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হয় আরো ১০ জন। ভোলা বোরহানউদ্দিনের পক্ষিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ২৫ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ছয়জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বরগুনার নলটোনা ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে ও আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে তিন পুলিশ সদস্যসহ ২৫ জন আহত হয়। পিরোজপুর বড়মাছুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষে ১০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। কুমিল্লার দেবিদ্বারের বড়শালঘর ইউনিয়নে দফায় দফায় সংঘর্ষে তিন জন আহত হয়েছে। শেরপুর নালিতাবাড়ীর পোড়াগাঁও ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে ১ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

বিস্তারিত আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে—

বাউফলে একজন নিহত : পটুয়াখালীর বাউফলের আদাবাড়িয়া ইউনিয়নে গত সোমবার রাতে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আশ্রাফ ফকির নিহত হয়েছেন। একই সঙ্গে গুরুতর আহত হয়েছেন আরো ১০ জন। সহিংসতায় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভাঙচুর, বসতঘর ও মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

নির্বাচনী গণসংযোগ করাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শামসুল হক ফকির ও বিদ্রোহী প্রার্থী জাহাঙ্গীর উল্লাহর কর্মী-সমর্থকদের মাঝে এ সংঘর্ষ হয়। নিহত আশ্রাফ ফকির আওয়ামী লীগ প্রার্থী শামসুল হক ফকিরের খালাতো ভাই। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী শামসুল হকের সমর্থকরা নির্বাচনী গণসংযোগে নামে। এ সময় বিদ্রোহী প্রার্থী জাহাঙ্গীর উল্লাহর লোকজন প্রতিপক্ষ এক সমর্থককে মারধর করে। একই সঙ্গে তিনটি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। খবর পেয়ে শামসুলের খালাতো ভাই আশ্রাফের নেতৃত্বে ক্ষুব্ধ সমর্থকরা প্রতিপক্ষের বসতঘর, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও একটি মাদ্রাসার কক্ষ ভাঙচুর করে। এ সময় সিদ্দিক মোল্লা নামে জাহাঙ্গীরের এক সমর্থককে কুপিয়ে জখম করে। এ ঘটনার পরপরই দুই পক্ষই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ওই সময় আশ্রাফ ফকিরকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে তাঁকে উদ্ধার করে বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

সংঘর্ষ আগুন ভাঙচুর : ভোলা বোরহানউদ্দিনের পক্ষিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নাগর হাওলাদার ও বিদ্রোহী প্রার্থী আলাউদ্দিনের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে গুরুতর ছয়জনকে বোরহানউদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার দুপুর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত দফায় দফায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিদ্রোহী প্রার্থীর দুই কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী কে এম শফিকুজ্জামান মাহফুজ ও আওয়ামী লীগ প্রার্থী হুমায়ুন কবিরের সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে তিন পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে। গত সোমবার রাত ৮টার দিকে নিশানবাড়িয়া খেয়াঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পিরোজপুর বড়মাছুয়া ইউনিয়নে গত সোমবার রাতে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় গতকাল বিদ্রোহী প্রার্থীর এক সমর্থককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

কুমিল্লার দেবিদ্বারের বড়শালঘর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনুছ মাস্টারের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এতে তিনজন আহত হয়েছে। সোমবার রাত ১০টা  থেকে গতকাল সকাল ১১টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, নির্বাচনী অফিস, বাড়ি-ঘর  ভাঙচুর করা হয়। শেরপুর নালিতাবাড়ীর পোড়াগাঁও ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী ওমর ফারুকের নির্বাচনী অফিসে স্বতন্ত্র প্রার্থী আজাদ মিয়ার সমর্থকরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে একজন আহত হয়েছে। তাঁর নাম আব্দুল হাই। তিনি ওমর ফারুকের সমর্থক। পরে তাঁকে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত সোমবার রাত ১০টার দিকে বারমারী বাজারে এ ঘটনা ঘটে।


মন্তব্য