kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নারায়ণগঞ্জে শিক্ষকের পিটুনিতে ২০ স্কুল ছাত্রী আহত

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সস্তাপুর এলাকার কমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকের পিটুনিতে অন্তত ২০ ছাত্রী আহত হয়েছে। পড়া না পারায় তাদের স্টিলের স্কেল দিয়ে পেটানো হয়।

গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্কুল পরিচালনা কমিটি ওই শিক্ষককে শোকজ করেছে।

আহত ছাত্রীদের মধ্যে রয়েছে জান্নাতুল মাওয়া, সুমাইয়া, স্বর্ণালী সাহা, জান্নাতুল ফেরদৌস, সানজিদা, শিলামনি, জান্নাত, সোনিয়া, পাপড়ি, তানিয়া, মুন্নি আক্তার, এনিলা, মেহেরুন নেছা, সোনিয়া ও আয়েশা মনি। পিটুনিতে তাদের শরীরের বিভিন্ন অংশে কেটে ও দাগ পড়ে গেছে।

অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, শিক্ষক এ বি এম রাশেদুল ইসলাম গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নবম শ্রেণির ক (বিজ্ঞান) শাখার বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় ক্লাসটি নিচ্ছিলেন। পড়া না পারায় তিনি শিক্ষার্থীদের স্টিলের স্কেল দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটুনি দেন।

পরে ছাত্রীরা বিষয়টি স্কুলের অধ্যক্ষ ও পরিচালনা কমিটিকে জানায়। এরপর অধ্যক্ষ নৃপেন্দ্রনাথ ভদ্র, পরিচালনা কমিটির সদস্য শাহ আলম, আলাউদ্দিন, কলেজ শাখার শিক্ষক প্রতিনিধি আল মামুন, স্কুল শাখার শিক্ষক প্রতিনিধি মোতাহার হোসেন, সংরক্ষিত নারী সদস্য নিলুফার ইয়াসমিনসহ অন্যরা এ নিয়ে বৈঠক করেন। বৈঠকে শিক্ষক রাশেদুল ইসলামকে শোকজের সিদ্ধান্ত হয়। সঠিক কারণ দর্শাতে ব্যর্থ হলে তাঁর বিরুদ্ধে বিধি অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে বৈঠক সূত্র জানিয়েছে।

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, রাশেদুল ইসলাম বাড়িতে কোচিং করান। তাঁর কাছে যেসব ছাত্রী কোচিং করে না তাদের তিনি স্কুলে সুযোগ পেলেই বেত্রাঘাত করেন। এর আগেও ছাত্রীদের বেপরোয়াভাবে বেত্রাঘাত করায় স্কুল কর্তৃপক্ষ তাঁকে শোকজ করেছিল।

এ বিষয়ে অধ্যক্ষ নৃপেন্দ্রনাথ ভদ্র বলেন, শিক্ষক রাশেদুল ইসলামকে ওই ক্লাস নেওয়া থেকে বিরত রাখা হয়েছে। তাঁকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।


মন্তব্য