kalerkantho


সিটি-আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার প্রদান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সিটি-আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার প্রদান

চ্যানেল আই কার্যালয়ে গতকাল সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার বিতরণ করা হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

কবি, লেখক, সাহিত্যিক, প্রকাশক ও বিশিষ্টজনের উপস্থিতিতে আনন্দঘন মিলনমেলা বসেছিল গতকাল শনিবার। উপলক্ষ সিটি-আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার বিতরণ। রাজধানীর তেজগাঁওয়ের চ্যানেল আই কার্যালয়ের স্টুডিও মিলনায়তন এ উপলক্ষে সাজানো হয় শৈল্পিক সাজে। আনন্দঘন আর উৎসবমুখর আবহে প্রবীণ ও নবীন লেখকদের উপস্থিতিতে সাত লেখকের হাতে তুলে দেওয়া হয় সিটি-আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার ২০১৬।

সদ্য শেষ হওয়া অমর একুশে বইমেলায় প্রকাশিত সেরা বইয়ের জন্য দেওয়া হয় এ পুরস্কার। অষ্টমবারের মতো এ পুরস্কার দেওয়া হয় দুটি শাখায়। প্রথম (ক-শাখা) ক্যাটাগরিতে ছিল জ্যেষ্ঠ লেখকদের বিভিন্ন শাখায় সেরা বইয়ের জন্য পুরস্কার এবং দ্বিতীয় (খ-শাখা) ক্যাটাগরিতে জীবনের প্রথম বইয়ের জন্য তরুণ ও নবীন লেখক পুরস্কার। প্রথম ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন আত্মজীবনী ও স্মৃতিকথা বিভাগে চন্দ্রাবতী একাডেমি থেকে প্রকাশিত ‘সোনালি দিনগুলি’ গ্রন্থের জন্য আবুল মাল আবদুল মুহিত এবং জার্নিম্যান থেকে প্রকাশিত ‘ঢাকার খাল পোল ও নদীর চিত্রকর’ গ্রন্থের জন্য মুনতাসীর মামুন। উপন্যাসে কথাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত সেলিনা হোসেনের ‘নিঃসঙ্গতার মুখর সময়’, শিশুসাহিত্যে অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত আসলাম সানীর ‘নির্বাচিত ১০০ ছড়া’, কবিতায় যৌথভাবে চৈতন্য থেকে প্রকাশিত ‘শ্রীহট্টকীর্তন’ গ্রন্থের জন্য মুজিব ইরম ও পিয়াস মজিদের ‘কবিকে লেখা কবিতা’। জীবনের প্রথম বই ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন জনান্তিক থেকে প্রকাশিত ‘এ ও সেও’ গ্রন্থের জন্য এহ্সান হাফিজ।

প্রথম ক্যাটাগরিতে প্রতিটি পুরস্কারের মূল্যমান ৩০ হাজার টাকা ও একটি ক্রেস্ট এবং দ্বিতীয় শাখায় পুরস্কারের মূল্যমান ১০ হাজার টাকা ও একটি ক্রেস্ট তুলে দেন অনুষ্ঠানের অতিথিরা।

এ সময় লেখকদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, সিটি ব্যাংক এনএ-এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও চিফ ফিন্যানশিয়াল অফিসার এস এইচ আসলাম হাবীব এবং আনন্দ আলো সম্পাদক রেজানুর রহমান।

ছড়াকার লুত্ফর রহমান রিটনের সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার করে চ্যানেল আই। এ সময় পুরস্কার পাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘পুরস্কার সব সময় আনন্দের বিষয়। কিন্তু এ পুরস্কারে যে আনন্দ লাভ করেছি, তার তুলনা মেলা ভার। ’ দ্বিতীয়বারের মতো এ পুরস্কার পেয়ে যারপরনাই আনন্দিত মুনতাসীর মামুন। তিনি বলেন, ‘এ পুরস্কার পাওয়ায় আনন্দিত, অভিভূতও। ’ সেলিনা হোসেন তাঁর অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন ‘পুরস্কার কাজের মূল্যায়ন। আমার কাছে এই পুরস্কার আমার লেখালেখির অনুপ্রেরণা জোগাবে। ’

জাদুঘরে দালিলিক নিদর্শন নিয়ে গোলটেবিল বৈঠক

বাংলাদেশের দালিলিক নিদর্শন ইউনেসকোর ‘মেমোরি অব দি ওয়ার্ল্ড রেজিস্ট্রার’-এ অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে গতকাল শনিবার জাতীয় জাদুঘরের বোর্ড অব ট্রাস্টিজ সভাকক্ষে এক গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী।


মন্তব্য