kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্বামী-শ্বশুরের অপবাদ

লৌহজংয়ে গায়ে আগুন দিয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বিউটি বেগম (৩২) নামে এক গৃহবধূ আগুনে পুড়ে মারা গেছেন। পরিবারের দাবি, স্বামী-শ্বশুরের অপবাদ সইতে না পেরে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

পরে গতকাল শুক্রবার রাত সোয়া ৮টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। গৃহবধূ বিউটি বেগম লৌহজং উপজেলার হাটভোগদিয়া গ্রামের ওমর আলী শেখের মেয়ে। তাঁর স্বামী একই গ্রামের জব্বার খানের ছেলে আল আমিন খান। ১৫ বছর আগে বিউটি ও আল আমিনের বিয়ে হয়। তাঁদের সংসারে চার ছেলেমেয়ে রয়েছে।

বিউটির চাচা আবদুল ওহাব শেখ জানান, ১৫ বছর ধরে আল আমিনের সঙ্গে সংসার করে এলেও গত কিছুদিন ধরে শ্বশুরবাড়ির লোকজন বিউটির ওপর পাশের বাড়ির বাদশা হাওলাদারকে জড়িয়ে পরকীয়ার অভিযোগ আনে। এ নিয়ে তাঁর স্বামী আল আমিন, শ্বশুর জব্বার খান, শাশুড়ি আমেনা বেগম ও ননদ কাউসারী বেগম তাঁকে নানা কথা বলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তোলেন। এ নিয়ে গতকাল সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সালিসের কথা বলে স্থানীয় ইউপি সদস্য মনসুর বাড়িতে আসেন।

বিউটির চাচা অভিযোগ করেন, মনসুর মেম্বার বাড়িতে এসে বিউটিকে পরকীয়ার অপবাদ দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন। একপর্যায়ে অপবাদ সইতে না পেরে বিউটি বাড়িতে থাকা কেরোসিন তেল গায়ে ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেন। এতে তিনি মারাত্মকভাবে অগ্নিদগ্ধ হলে তাঁকে প্রথমে লৌহজং উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে বিকেল ৫টার দিকে তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে গেলে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, বিউটির শরীরের ৯০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাঁর বাঁচার সম্ভাবনা নেই। পরে রাত সোয়া ৮টার দিকে তিনি মারা যান বলে ওমর আলী শেখ কালের কণ্ঠকে টেলিফোনে নিশ্চিত করেন।

এ ব্যাপারে লৌহজং থানার ওসি মোল্লা জাকির হোসেন জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি, ননদ, মনসুর মেম্বারসহ সাতজনকে আসামি করে একটি মামলার প্রক্রিয়া চলছে। ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য