kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন

শিবগঞ্জে ‘বিদ্রোহী’ নিয়ে আ. লীগ-বিএনপি বিপাকে

লিমন বাসার, বগুড়া   

৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির একাধিক নেতা দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন। এসব ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী নিয়ে বিপাকে পড়েছেন দুই দলের নেতারা।

গত বুধবার ছিল দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। সে সময় ১২টি ইউনিয়নে ৭১৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৭৮ জন, পুরুষ সদস্য পদে ৪৮৯ জন এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৪৮ জন রয়েছেন। আওয়ামী লীগ মনোনীত ১২ জন, বিএনপির ১২ জন, জাতীয় পার্টির ছয়জন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে জামায়াত পাঁচটি ইউনিয়নে প্রার্থী দিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চেয়ারম্যান পদে মনোনীতদের বাইরে আওয়ামী লীগের ১৪ জন এবং বিএনপির ১০ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে ময়দানহাট্টা ইউনিয়নে আছেন আওয়ামী লীগের আব্দুস সামাদ ও শফি মাহমুদ সুলতান হাসান। কিচকে ক্ষমতাসীন দলটির মোমিনুল ইসলাম লিটন চৌধুরী, সামছুল ইসলাম সরকার এবং বিএনপির বর্তমান চেয়ারম্যান আফসার আলী। মাঝিহট্ট ইউনিয়নে বিএনপির মির্জা গোলাম হাফিজ। বুড়িগঞ্জ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সাইদুর রহমান, বিহার ইউনিয়নে একই দলের মোনায়েম হোসেন ইকবাল, মোকামতলায় মালেক আকন্দ, এনামুল হকের সঙ্গে আছেন বিএনপির আব্দুল লতিফ সরকার। রায়নগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সাইফুল ইসলাম, বিএনপির সালাউদ্দিন ও হাসিম উদ্দিন স্বপন। পিরব ইউপিতে সরকারি দলের মোজাম্মেল হক ও আব্দুল কুদ্দুস সরকার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে।

শিবগঞ্জ ইউনিয়নে বিএনপির আবু বক্কর সিদ্দিক ও আতিকুর রহমান সোহেল দলের সঙ্গে বিদ্রোহ করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আটমূল ইউনিয়নে জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের বেলাল হোসেন ও বিএনপির মোজাফ্ফর হোসেন, দেউলি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সাজ্জাত হোসেন সরকার ও আব্দুল হাই প্রধান এবং বিএনপির সিরাজুল ইসলাম, নবাব আলী মণ্ডল ও মোতাহার হোসেন। সৈয়দপুর ইউপিতে বিএনপির বর্তমান চেয়ারম্যান মাহমুদ হোসেন তৌফিক দলের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিহার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোনায়েম হোসেন ইকবাল জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে দল করার পরও মূল্যায়ন না করায় দলের সিদ্ধান্তের বাইরে এসে প্রার্থী হয়েছেন।


মন্তব্য