kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুন্সীগঞ্জে বঙ্গীয় গ্রন্থ জাদুঘর উদ্বোধন

সংস্কৃতি ধরে রাখতে দরকার গণগ্রন্থাগার : অর্থমন্ত্রী

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সংস্কৃতি ধরে রাখতে দরকার গণগ্রন্থাগার : অর্থমন্ত্রী

গতকাল মুন্সীগঞ্জে বঙ্গীয় গ্রন্থ জাদুঘর উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ছবি : কালের কণ্ঠ

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, জাতীয় অগ্রগতি শুধু অর্থনীতি দিয়ে নয়। সেখানে নানা কিছুর প্রয়োজন রয়েছে।

এর মধ্যে সংস্কৃতি ও পাবলিক লাইব্রেরিও বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। বাংলাদেশে পাবলিক লাইব্রেরির অভাব রয়েছে। যেগুলো আছে, তাতে পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধারও অভাব রয়েছে। তার পরেও এটিকে এগিয়ে নিতে হবে।

গতকাল শুক্রবার মুন্সীগঞ্জে দেশের সর্বপ্রথম বঙ্গীয় গ্রন্থ জাদুঘর, অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন কার্যালয় ও আবদুল জব্বার খান মুক্তমঞ্চের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন। লৌহজংয়ের কনকসারে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, সংস্কৃতি ধরে রাখতে পাবলিক লাইব্রেরি তৈরি করা উচিত। যেমন ব্র্যাকের কিশোর-কিশোরী পাবলিক লাইব্রেরি ইতিমধ্যে অনেক এগিয়ে গেছে। একদিন এই দেশে ঘরে ঘরে আবারও লাইব্রেরির আন্দোলন ফিরে আসবে—এমনটাই আশা করেন অর্থমন্ত্রী। কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলনের মুন্সীগঞ্জ জেলাকে মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর জেলা করার প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আপনারা এগিয়ে যান। আমি আপনাদের সঙ্গেই আছি। ইতিহাসের ধারক বিক্রমপুরের নাম ধরে রাখা উচিত।

ইমদাদুল হক মিলন বলেন, লক্ষ্মীর আগমন ঘটলে সরস্বতী পালিয়ে যায়। বিক্রমপুরের অহংকারের জায়গাটা একসময় নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। এখানে শিক্ষা ও সংস্কৃতিচর্চায় কিছুটা ভাটা পড়েছিল। কিন্তু আজ সময় এসেছে সরস্বতীর। এখন আবার বিক্রমপুর শিক্ষা-সংস্কৃতিতে এগিয়ে চলেছে নব উদ্যমে।

অগ্রসর বিক্রমপুরের সভাপতি ড. নূহ আলম লেনিন বলেন, এটা কোনো সাধারণ লাইব্রেরি নয়, এটি গ্রন্থ জাদুঘর। এখানে অনেক প্রাচীন বই রয়েছে। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. মহিউদ্দিন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, বিশিষ্ট স্থপতি কবি রবিউল হুসাইন, প্রকৌশলী ঢালী আবদুল জলিল, ইনটেরিয়র ডিজাইনার নাজনীন হক মিমি, বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান শায়ক, অগ্রসর বিক্রমপুর লৌহজং শাখার সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, প্রমুখ।

গ্রন্থ জাদুঘরটিতে ২০ হাজারের বেশি বই রয়েছে।


মন্তব্য