kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নারায়ণগঞ্জে সাত খুন মামলায় সরকারকে আইনি নোটিশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জের বহুল আলোচিত সাত খুনের মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর ও রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলিকে (পিপি) ৭২ ঘণ্টার মধ্যে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে সরকারকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। গতকাল বুধবার আইন ও বিচার বিভাগের সচিব এবং সলিসিটরকে ডাকযোগে এ আইনি নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. ইউনুছ আলী আকন্দ।

আইনজীবী ড. ইউনুছ আলী আকন্দ সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাত খুনের মামলায় পিপি আদালত কক্ষ থেকে সাংবাদিকদের বের করে দিয়েছেন, যা দেশের উন্মুক্ত বিচার পদ্ধতির বিরোধী। সে কারণেই নোটিশ পাঠানো হয়েছে। ’

সাত খুনের ঘটনায় ২০১৪ সালে দায়ের করা দুটি মামলার বিচারকাজ শুরু হয়েছে। সোমবার নারায়ণগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে এক মামলার বাদী বিজয় কুমার পালের জবানবন্দির মধ্য দিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। সেদিন মামলার আসামি সাবেক কাউন্সিলর নূর হোসেন, র‌্যাবের সাবেক কর্মকর্তা তারেক সাঈদ মোহাম্মাদ, আরিফ হোসেন, এম এম রানাসহ ২৩ জনকে কাঠগড়ায় নেওয়া হয়। এ সময় সাংবাদিকরা আদালত কক্ষে ছিলেন। কিন্তু সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মামলার কার্যক্রম শুরুর আগ মুহূর্তে আসামি নূর হোসেনের আইনজীবী ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা সাংবাদিকদের বের হয়ে যেতে বলেন। কিন্তু গণমাধ্যমকর্মীরা না গেলে সেখানে পৌঁছে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি এস এম ওয়াজেদ আলী খোকন বলেন, ‘সাক্ষ্যগ্রহণের কার্যক্রম চলাকালে বাদী, আসামি ও আইনজীবী ছাড়া আর কেউ থাকতে পারবেন না বলে আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। ’ এ অবস্থায় সাংবাদিকরা বের হয়ে যেতে বাধ্য হন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সেদিন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) বা কোনো আইনজীবী আদালতের এজলাস থেকে সাংবাদিকদের বের হয়ে যেতে বলতে পারেন না। এই এখতিয়ার তাদের নেই। ’

এদিকে নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, সাত খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের করা তিনটি অস্ত্র মামলার সাক্ষ্য শুনানি আগামী ১৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ধার্য থাকলেও সাক্ষীর অনুপস্থিতির কারণে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (দ্বিতীয় আদালত) কামরুন নাহার এ তারিখ নির্ধারণ করেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দায়ের করা অস্ত্র আইনের পৃথক তিনটি মামলায় ইতিমধ্যে নূর হোসেনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়েছে।


মন্তব্য