সব চৌকি ও শ্রম আদালতের জন্য কমিটি হবে-331105 | খবর | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

রবিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১০ আশ্বিন ১৪২৩ । ২২ জিলহজ ১৪৩৭


অসচ্ছলদের জন্য বিনা খরচে আইনি সহায়তা

সব চৌকি ও শ্রম আদালতের জন্য কমিটি হবে

রেজাউল করিম   

২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



তৃণমূল পর্যায়ে অসচ্ছল ব্যক্তিদের বিনা খরচে আইনি সহায়তা দিতে এবার সব চৌকি আদালতের (উপজেলা পর্যায়ে) জন্য আইনগত সহায়তা প্রদান কমিটি এবং সব শ্রম আদালতের (বিভাগীয় পর্যায়ে) জন্য বিশেষ আইনগত সহায়তা প্রদান কমিটি গঠন করা হবে। গতকাল সোমবার এ-সংক্রান্ত দুটি পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন মন্ত্রণালয়। বর্তমানে ১৬টি জেলায় ২৫টি ফৌজদারি ও ২৮টি দেওয়ানি চৌকি আদালত রয়েছে। আর চার বিভাগে সাতটি শ্রম আদালত রয়েছে। চৌকি আদালতের ক্ষেত্রে এক উপজেলায় একটি আইন সহায়তা কমিটি হবে। আর শ্রম আদালতের ক্ষেত্রে এক বিভাগে একটি বিশেষ আইন সহায়তা কমিটি হবে। কয়েকটি উপজেলা এবং বিভাগে কমিটি রয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, চৌকি আদালতের আইন সহায়তা কমিটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন ওই আদালতের বিচারক। কোনো উপজেলায় একাধিক চৌকি আদালত থাকলে জ্যেষ্ঠ বিচারক চেয়ারম্যান হবেন। কমিটির সদস্য হিসেবে থাকবেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অথবা তাঁর প্রতিনিধি, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, চৌকি আদালতের আইনজীবী সমিতির সভাপতি, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা), উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা, থানার ওসি, উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা, চেয়ারম্যানের মনোনীত একজন সরকারি আইনজীবী, জাতীয় মহিলা সংস্থার উপজেলা কমিটির চেয়ারম্যান এবং একটি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার উপজেলা প্রতিনিধি। চৌকি আদালত আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক কমিটির সদস্যসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রতিটি শ্রম আদালতের বিশেষ কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন ওই আদালতের চেয়ারম্যান। তবে একাধিক শ্রম আদালত থাকলে জ্যেষ্ঠ চেয়ারম্যান বিশেষ কমিটির চেয়ারম্যান হবেন। সদস্য হিসেবে থাকবেন একজন যুগ্ম শ্রম পরিচালক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক মর্যাদার একজন কর্মকর্তা, শ্রম আদালতের একজন রেজিস্ট্রার, শ্রম আদালত আইনজীবী সমিতির সভাপতি, দুজন শ্রমিক প্রতিনিধি, শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করে এমন বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার একজন স্থানীয় প্রতিনিধি, মালিকপক্ষের একজন স্থানীয় প্রতিনিধি ও শ্রম আদালতের পাঁচজন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী। শ্রম আদালত আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক কমিটির সদস্যসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার সহকারী পরিচালক (সিনিয়র সহকারী জজ) মাসুদা ইয়াসমিন কালের কণ্ঠকে বলেন, অসচ্ছলদের বিনা খরচে আইনি সহায়তা দিতে সরকার ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা’ প্রতিষ্ঠা করেছে। প্রতিটি জেলা আদালতে জেলা জজের নেতৃত্বে জেলা আইনগত সহায়তা প্রদান কমিটি রয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ে এ সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে এখন চৌকি আদালত ও শ্রম আদালতের জন্য আইনগত সহায়তা প্রদান কমিটি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, এসব কমিটি জাতীয় আইনগত সহায়তা সংস্থার অধীনে কাজ করবে। এগুলোর এখতিয়ার জেলা কমিটিগুলোর মতই হবে। আগেই কিছু চৌকি ও শ্রম আদালতের জন্য কমিটি গঠিত হয়েছে। এ প্রজ্ঞাপনের পর সংশ্লিষ্ট সব আদালতের জন্য কমিটি গঠন করা হবে।

মন্তব্য