সুপ্রিম কোর্টে মামলা ৪ লাখের বেশি-330680 | খবর | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


সুপ্রিম কোর্টে মামলা ৪ লাখের বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সর্বোচ্চ আদালত বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টে মোট চার লাখ সাত হাজার ৫৮৬টি মামলা বিচারাধীন আছে বলে জানিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। গতকাল সোমবার জাতীয় সংসদের অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে ওয়ার্কার্স পার্টির সংসদ সদস্য হাজেরা খাতুনের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। 

আইনমন্ত্রী বলেন, এর মধ্যে হাইকোর্ট বিভাগে তিন লাখ ৯৪ হাজার ২২৫টি মামলা এবং আপিল বিভাগে ১৩ হাজার ৩৬১টি মামলা বিচারাধীন। হাইকোর্ট বিভাগের মামলার মধ্যে দুই লাখ ৩৭ হাজার ৯৬৪টি ফৌজদারি, ৮৭ হাজার ৩১০টি দেওয়ানি এবং রিট মামলা ৬২ হাজার ১৫৭টি এবং ছয় হাজার ৭৯৪টি আদি মামলা। আর আপিল বিভাগে বিচারাধীন মামলার মধ্যে দেওয়ানি ১০ হাজার ৫৭০টি, ফৌজদারি দুই হাজার ৭২৪টি এবং অন্যান্য (কনটেম্পট পিটিশন) ৬৭টি। সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের লিখিত প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, বর্তমানে বিচারাধীন চোরাচালান মামলার সংখ্যা ৩০ হাজার ৭৮৭টি। এসব মামলার মূল্যমান ৮৩৮ কোটি ৮৯ লাখ ৬৬ হাজার ৭৭০ টাকা। ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠনের মাধ্যমে ওই সব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

জাসদের নাজমুল হক প্রধানের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, স্বাধীন দেশ উপযোগী বিচার প্রশাসন গঠন করার জন্য আইন বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এ জন্য ১৯৭৩ সালে প্রণীত বাংলাদেশ ল’স (রিভিশন অ্যান্ড ডিক্লারেশন) অ্যাক্ট-১৯৭৩ প্রণয়নের মাধ্যমে স্বাধীনতাপূর্ব আইনগুলোকে প্রয়োজনীয় সংশোধন ও অভিযোজনপূর্বক বহাল রাখা হয়েছে।

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ছে না

এদিকে সংসদে জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০ থেকে বাড়িয়ে ৩৫ বছর করার কোনো পরিকল্পনা সরকারের আপাতত নেই। গতকাল সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা বেগমের প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এ কথা বলেন। তিনি আরো জানান, বর্তমানে দুজন সচিব, ১৭ জন অতিরিক্ত সচিব, ৭২ জন যুগ্ম সচিব, ৪৫ জন উপসচিব, ৩৫ জন জ্যেষ্ঠ সচিব ও ১৬ জন সহকারী সচিব ওএসডি আছেন। আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজীর লিখিত প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ আশরাফ জানান, ২০১৪ সালের ডিসেম্বরের তথ্যানুযায়ী, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও এর আওতাধীন বিভিন্ন দপ্তর বা সংস্থায় তিন লাখ দুই হাজার ৯০৪টি পদ শূন্য ছিল। এর মধ্যে নবম তদূর্ধ্ব গ্রেড (১ম শ্রেণি) ৩৯ হাজার ৫৬৪টি, ১০-১২ গ্রেড (২য় শ্রেণি) ৩০ হাজার ৪২২টি, ১৩-১৭ গ্রেড (৩য় শ্রেণি) এক লাখ ৬৩ হাজার ৪১৭টি এবং ১৮-২০ গ্রেড (৪র্থ শ্রেণি) ৬৯ হাজার ৫০১টি। ২০১৫ সালের তথ্য হালনাগাদ কার্যক্রম চলমান আছে। হালনাগাদকৃত তথ্য সংসদকে পরবর্তী সময়ে জানানো হবে। তিনি আরো জানান, শূন্য পদ পূরণের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

মন্তব্য