kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


হারিছ চৌধুরীসহ ১০ আসামির সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



হারিছ চৌধুরীসহ ১০ আসামির সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

কিবরিয়া হত্যা মামলা

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যার ঘটনায় বিস্ফোরক আইনের মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাবেক উপদেষ্টা হারিছ চৌধুরীসহ পলাতক ১০ আসামির সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার হবিগঞ্জের বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ আতাবুল্লাহ এ আদেশ দেন।

একই সঙ্গে মামলায় পরবর্তী শুনানির দিন ৩১ মার্চ নির্ধারণ করেন।

হবিগঞ্জের পিপি অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক চৌধুরী জানান, কিবরিয়া হত্যার ঘটনায় হওয়া বিস্ফোরক মামলার চার্জশিট (অভিযোগপত্র) গ্রহণ শেষে পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে গত ৫ জানুয়ারি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ইস্যু করা হয়েছিল। তাঁরা গ্রেপ্তার না হওয়ায় তাঁদের সম্পত্তি জব্দের আদেশ হয়েছে। পরবর্তী সময় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশের পর গ্রেপ্তারকৃত সব আসামির উপস্থিতিতে মামলার চার্জ গঠন করা হবে। এরপর বিচারকাজ শুরু হবে।

গতকাল সকালে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে হুজি নেতা মুফতি হান্নান, শেখ ফরিদ, মাওলানা শেখ সালা উদ্দিন, আ. মাজেদ, মহিবউল্লাহ, শরীফ শাহেদুল আলম ও মাইন উদ্দিন এবং হবিগঞ্জের কারাগারে থাকা মিজানুর রহমান মিজান, দেলোয়ার রিপন, বদরুল আলম ও হালিম সৈয়দ নাহিমকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। তবে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবর, সিলেটের বরখাস্ত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও হবিগঞ্জের মেয়র আলহাজ জি কে গউছকে হাজির করা হয়নি। এ ছাড়া জামিনে থাকা আট আসামির মধ্যে ছয়জন হাজিরা দেন এবং আব্দুল কাইয়ুম ও আয়াত আলী সময় প্রার্থনা করেন।

একই ঘটনায় হওয়া হত্যা মামলাটি বর্তমানে সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে সাক্ষীগ্রহণ পর্যায়ে থাকা অবস্থায় বর্তমানে স্থগিত রয়েছে। বিস্ফোরক মামলাটি বিচারের জন্য হবিগঞ্জের দায়রা জজ আদালতে ১৩ নভেম্বর পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভা শেষে ফেরার পথে দুর্বৃত্তদের গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া, তাঁর ভাতিজা শাহ মঞ্জুর হুদাসহ পাঁচজন।


মন্তব্য